Home / বাংলাদেশ / সারাদেশ / রাজধানী / আজও রাজপথে শিক্ষার্থীরা

আজও রাজপথে শিক্ষার্থীরা

ক্রাইম প্রতিদিন : গত রবিবার বিমানবন্দর সড়কের কুর্মিটোলা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জাবালে নূর পরিবহনের বাসচাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের দুই শিক্ষার্থীকে পিষে মারার ঘটনার প্রতিবাদে আজও (৪ আগস্ট) রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সড়কে অবস্থান নিয়েছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা।

ওই দুর্ঘটনার পর থেকে শিক্ষার্থীরা নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ এবং ঘাতক চালকের সর্বোচ্চ শাস্তিসহ ৯ দফা দাবিতে শিক্ষার্থীরা ঢাকার রাজপথে নেমে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন করছে। এই ধারাবাহিকতায় সপ্তম দিনের মতো শনিবারও (৪ আগস্ট) রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

শনিবার (৪ আগস্ট) রাজধানীর উত্তরা, মিরপুর, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের সামনে, ধানমন্ডি, লালমাটিয়া, আসাদগেট, সাইন্স ল্যাবরেটরি, যাত্রাবাড়ী, শাহবাগে সড়ক অবরোধ করে গাড়ির লাইন্সেস চেক করছে শিক্ষার্থীরা।

এর আগে, মঙ্গলবার (৩১ জুলাই) রাজধানীর ব্যস্ততম সড়ক সাইন্স্যলাব অবরোধ করেন ঢাকা কলেজ, সিটি কলেজ, আইডিয়াল কলেজের শিক্ষার্থীরা। সেখানে পুলিশের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, ইট পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনাও ঘটে।

শিক্ষার্থীদের ৯ দফা দাবি গুলো হচ্ছে-

১. বেপরোয়া চালককে ফাঁসি দিতে হবে এবং এই শাস্তি সংবিধানে সংযোজন করতে হবে।

২. নৌপরিবহনমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহার করে শিক্ষার্থীদের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে।

৩. শিক্ষার্থীদের চলাচলে এমইএস ফুটওভারব্রিজ বা বিকল্প নিরাপদ ব্যবস্থা নিতে হবে।

৪. প্রত্যেক সড়কের দুর্ঘটনা প্রবণ এলাকায় স্পিড ব্রেকার দিতে হবে।

৫. সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ছাত্র-ছাত্রীদের দায়ভার সরকারকে নিতে হবে।

৬. শিক্ষার্থীরা বাস থামানোর সিগন্যাল দিলে থামিয়ে তাদের বাসে তুলতে হবে।

৭. শুধু ঢাকা নয়, সারাদেশে শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ ভাড়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

৮. রাস্তায় ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল এবং লাইসেন্স ছাড়া চালকদের গাড়ি চালনা বন্ধ করতে হবে।

৯. বাসে অতিরিক্ত যাত্রী নেওয়া যাবে না।

প্রসঙ্গত, গত রবিবার জাবালে নূর (ঢাকা মেট্রো ব-১১৯২৯৭) পরিবহনের একটি বাসচাপায় রাজধানীর শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হন। এর প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামে। বুধবার চতুর্থ দিনের মাথায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ঢাকার পর চট্টগ্রাম, বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন শহরে ছড়িয়ে পড়ে।

এদিকে, সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বৃস্পতিবার (২ আগস্ট) সারা দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

এই মুহূর্তে অন্যরা যা পড়ছে

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 20
    Shares
x

Check Also

৪ জঙ্গির মধ্যে তিনজনই মানারাত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী

ক্রাইম প্রতিদিন ...