আমনের মৌ মৌ গন্ধে পল্লীতে খুশির আমেজ

ক্রাইম প্রতিদিন, এম এ মালেক, সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জ কামারখন্দ উপজেলায় রোপা আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ক্ষেতগুলোতে বাতাসে দুলছে ধানের শীষ। মাঠে মাঠে রোপা আমন দেখে কৃষকের মুখে ফুটছে উজ্জ্বল হাঁসি।

বুধবার (২১নভেম্বর) উপজেলার বিভিন্ন ধানক্ষেত ঘুরে দেখা যায়,দিগন্ত জোড়া মাঠ সেজেছে সবুজ ও হলুদ রংয়ে। ধানের গন্ধে ভরে উঠছে গ্রামীণ জনপদ। মাঠজুড়ে কৃষকের ফলানো সোনা রং ধানের ছড়াছড়ি। দফায় দফায় বৃষ্টি ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের পরও চলতি মৌসুমে রোপা আমন ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় কামারখন্দ উপজেলার চাষিরা বেশ খুশি। কৃষক ও মজুররা দলবদ্ধভাবে জমিতে ধান পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। চলতি মৌসুমে রোপা আমন ধানের বাম্পার ফলনের পাশাপাশি বাজারে ধানের দাম ভালো থাকায় কৃষকরা বেশ উৎফুল্ল। অনেক জায়গায় আগাম ধান কাটা-মাড়াইয়ের কাজও চলছে এমন চিত্র শুধু অত্র উপজেলায় না জেলার বিভিন্ন উপজেলা ঘুরে ও একই চিত্র লক্ষ করা যায়। কামারখন্দ উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়,এবার চলতি মৌসুমে উপজেলায় ৪ হাজার ৪ শত ৭০ হেক্টর জমিতে রোপা-আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে উপজেলায় ৫ হাজার ২ শত ৭০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষাবাদ হয়েছে, যা গত বছরের তুলনায় বেশি। জামতৈল ইউনিয়নের কয়েলগাঁতী গ্রামের খালেক মিয়ার ছেলে ধানচাষি খোকা মিয়া বলেন, বাজারে চাহিদা ও দাম বেশি হওয়ায় অন্যান্য জাতের তুলনায় রোপা আমন ধানও ভালো চাষ হয়েছে। এ জন্য রোপা আমন ধানের মৌ মৌ গন্ধে ভরে উঠেছে মাঠ।

একই কথা বলেন,ধোপাকান্দি গ্রামের ধানচাষি আবুল কাশেম। ভদ্রঘাট ইউনিয়নের হাটগারা গ্রামের কৃষক রুবেল সেখ জানান,তিনি স্বর্ণা-৫১, ব্রি-ধানসহ এ জাতের ধান বিঘাপ্রতি ২৩ থেকে ২৫ মণ করে পাচ্ছেন। আর বাজারে বর্তমানে প্রতি মণ ধান বিক্রি হচ্ছে ৮০০ টাকা দরে। তিনি আরো জানান, ধানের এমন দাম পাওয়া গেলে তাদের কোনো সমস্যা হবে না।

কামারখন্দ উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো.মাসুম রানা জানান,অত্র উপজেলায় এবার আগাম জাতের রোপা আমন ধানের চাষ ভালো হয়েছে। ভালো চারা পাওয়ার জন্য বীজতলায় নিয়মিত সেচ দেয়া,অতিরিক্ত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা,আগাছা দমন,সবুজপাতা ফড়িংসহ অন্যান্য আক্রমণ প্রতিহত করার জন্য কৃষকদের নিয়মিত পরামশ্র প্রদান করা হয়েছে।

কৃষকরা তাদের কষ্টের ফসল মাড়াইয়ের কাজ ঠিকভাবে করতে পারলে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলেও তিনি মনে করেন। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আনোয়ার সাদাত বলেন,আগের বছরের তুলনায় এ বছর রোপা আমন ধানের মাঠ ভালো অবস্থানে রয়েছে। রোগ-বালাই ও পোকার উপদ্রব প্রতিরোধে কৃষকদের করণীয় সম্পর্কে পরামর্শ দিতে প্রতিটি ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ে শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন
শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 2
    Shares
x

Check Also

বিএনপি থেকে পদত্যাগ করলেন মনির খান

ক্রাইম প্রতিদিন, ঢাকা : জনপ্রিয় কণ্ঠ শিল্পী মনির ...