Home / সারাদেশ / কোটা তুলে দেয়ার ঘোষণায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের আলটিমেটাম

কোটা তুলে দেয়ার ঘোষণায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের আলটিমেটাম

ক্রাইম প্রতিদিন, দিনাজপুর : সরকারি চাকরিতে কোটা তুলে দেয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছে দিনাজপুরের মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানরা। আগামী দুই দিনের মধ্যে কোটা পদ্ধতি প্রবর্তন করে মুক্তিযোদ্ধা কোটা সংরক্ষণ না করা হলে রাজপথে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছে তারা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন চলাকালে এই ঘোষণা দেন মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানরা। এ সময় তারা রোববারের পর দিনাজপুর শহরে হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়ার ঘোষণা দেন।

বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক কোটা পদ্ধতি তুলে নেয়ার ঘোষণার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার দিনাজপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের ব্যানারে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণকারী দিনাজপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার সাবেক এমপি আবদুল মালেক সরকার বলেন, জীবন বাজি রেখে আমরা মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে এই দেশকে স্বাধীন করেছি। স্বাধীন ও সার্বভৌম এই রাষ্ট্রে আমাদের সন্তানরা না খেয়ে থাকবে আর আমাদের মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় সম্মান দেয়া হবে। কোটা পদ্ধতি প্রবর্তন না থাকলে মৃত্যুর পর এই রাষ্ট্রীয় সম্মানে দাফন আমরা চাই না।

তিনি বলেন, এটা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। স্বাধীনতাবিরোধী চক্রের ষড়যন্ত্রে আমাদের এই অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হবে, তা হতে দেয়া হবে না। মানববন্ধন চলাকালে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড দিনাজপুরের সভাপতি মীর্জা লিয়াকত আলী বেগ লিটন ঘোষণা দেন, আগামী দুই দিনের মধ্যে আমাদের কোটা প্রবর্তনের দাবি বাস্তবায়ন না করা হলে রাজপথে নেমে সবকিছু অচল করে দেয়া হবে।

তিনি বলেন, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কোটা পদ্ধতি বাতিলে যেভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে, সেভাবেই আগামী রোববারের পর থেকে হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো গাড়িকে দিনাজপুর শহরে চলাচল করতে দেয়া হবে না।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে মুক্তিযোদ্ধা আবু হায়াত মো. কুদরত-ই খুদা, মহাদেব চন্দ্র রায়, সাইফুদ্দিন আখতার, জয়নুল আবেদনী, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড দিনাজপুরের সাধারণ সম্পাদক রাফায়েত হোসেন রাফু, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান আরমান হোসেন, সায়েম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মানববন্ধন শেষে সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি চালু রাখার দাবিতে দিনাজপুর জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 28
    Shares