Home / এক্সক্লুসিভ / গৃহবধুকে জিম্মি করে নগ্ন ভিটিও ধারণ, টাকা লুট : শালিসী বৈঠকে ধামা চাপার চেষ্টা

গৃহবধুকে জিম্মি করে নগ্ন ভিটিও ধারণ, টাকা লুট : শালিসী বৈঠকে ধামা চাপার চেষ্টা

ক্রাইম প্রতিদিন, কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ) : নওগাঁর রাণীনগরে প্রকাশ্য দিবালোকে গৃহবধুকে দেশীয় ধারালো অস্ত্রের মূখে জিম্মি করে প্রায় তিন লক্ষ টাকা লুটের ঘটনা ঘটেছে । টাকা লুটের ঘটনা চাপা রাখতে গৃহবধুর নগ্ন ভিডিও ধারণ করে ইন্টারনেটে ছেরে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়েছে। এঘটনার সঠিক বিচার করার নামে ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে শালিসী বৈঠক করে বিষয়টি ধামা-চাপা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার একডালা ইউপি’র নারায়ন পাড়া গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে মহসিন আলী (১৭) গত ১ জুলাই সকাল অনুমান সাড়ে ৯ টায় প্রত্যন্ত অঞ্চলে একটি বাড়ীতে প্রবেশ করে। এর পর ওই বাড়ীর গৃহবধুকে একা পেয়ে ধারালো চাকুর মুখে তাকে জিম্মি করে ড্রয়ার থেকে দুই লক্ষ আশি হাজার টাকা লুট করে নেয় । টাকা লুটের ঘটনা চাপা রাখতে ধারালো অস্ত্রের মূখে গৃহবধুকে বিবস্ত্র করে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নগ্ন ভিডিও ধারণ করে। ঘটনা কাউকে জানালে এই ভিডিও ইন্টারনেটে ছেরে দেয়া হবে হুমকি দিয়ে স্বর্ণালঙ্গকার চায়। এসময় গৃহবধু মহসিনকে ওই ঘরে রেখে অন্য ঘর থেকে চাবি নিয়ে আসার কথা বলে কৌশলে বাড়ীর বাহিরে গিয়ে প্রতিবেশি কয়েকজন মহিলাকে ডেকে আনে। মহিলারা লম্পট মহসিনকে হাতে-নাতে আটক করলেও দৌড়ে পালিয়ে যায় । স্থানীয়রা বলছেন,নারায়ন পাড়া গ্রামের তমেজ উদ্দীনের ছেলে শহিদুল ইসলামের (৩৫) সহায়তায় মহসিন ওই গৃহবধুর বাড়িতে প্রবেশ করে। পরে ঘটনাটি গৃহবধু তার স্বামীকে জানালে ওই দিন বিকেলে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় মহসিনকে আবাদপুকুর এলাকা থেকে ধরে বাড়ীতে নিয়ে যায় । গৃহকর্তা অভিযোগ করে জানান, মোবাইল ফোনে ধারনকৃত ভিডিওর মেমোরি মহসিনের কাছ থেকে ওই গ্রামের ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল ইসলাম নিয়ে নেয় । তার কাছ থেকে ভিডিওর মেমোরি চাইলে তাকে না দিয়ে চেয়ারম্যান ধারনকৃত ভিডিও ডিলিট করে ফেলে । এছাড়া তাদেরকে সঠিক বিচার করে দেয়ার কথা বলে মহসিনকে ছেরে দেয়। এর পর ওই রাতেই নারায়ন পাড়া গ্রামে একটি শালিস ডেকে শালিসে কোন সমাধান করতে না পেরে গত ৯ জুলাই আবারো শালিস বসায় । সে দিনও কোন সমাধান কতে না পেরে গত শুক্রবার রাতে পূনরায় শালিস ডাকা হয় । ওই শালিসে এলাকার মাছ চুরির ঘটনা জুরে দিয়ে আসল ঘটনাকে ধামা-চাপা দিতে লাগলে শালিসে হট্রগোল বেধে যায়। এতে শালিসে সঠিক বিচার না করেই সবাই উঠে যায় ।
এঘটনায় শালিসী বৈঠকের সভাপতি মুনছুর আলী জানান,গ্রামের লোকজন হট্রগোল করার কারনে চেয়ারম্যান রেজাউল ইসলাম রাগ করে শালিস স্থগিত করেছেন। ফলে বিষয়টি সমাধান করা সম্ভব হয়নি।
চেয়ারম্যান রেজাউল ইসলাম জানান, মোবাইলে ভিডিও করার ঘটনা আমার জানা নেই । তাছাড়া অভিযুক্ত মহসিন নাবালক,তাই তার সঠিক বিচার করা আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। ঘটনার দিনই মহসিনের অভিভাবকরা চরম শাসন করে ঘটনা মিমাংসা করেছে।
এব্যাপারে রাণীনগর থানার ওসি এএসএম সিদ্দিকুর রহমান জানান,এরকম ঘটনা আমার জানা নেই বা কেউ জানায়নি। এবিষয়ে অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই মুহূর্তে অন্যরা যা পড়ছে

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
x

Check Also

গলায় ছুরি ধরে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ

ক্রাইম প্রতিদিন ...