Home / বাংলাদেশ / সারাদেশ / রাজধানী / ‘তোরা বাঁচবি না, তোদের গুলি করে মারব’

‘তোরা বাঁচবি না, তোদের গুলি করে মারব’

ক্রাইম প্রতিদিন, ডেস্ক : কোটা পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে আন্দোলনকারীদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে।

বুধবার (১৬ মে) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রাজু ভাস্কর্যের সামনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কোটা আন্দোলনের নেতারা এ অভিযোগ করেন।

এদিকে ওই ঘটনার প্রতিবাদে বুধবার (১৬ মে) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্হাগারের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

‘হত্যার হুমকি’র বিষয়ে নুরুল হক নুর বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটির (কোটা সংস্কার) যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ আমার রুমে ছিল। এর মধ্যে চারুকলা অনুষদের ছাত্রলীগের সেক্রেটারি লিমন ফোন দিয়ে থ্রেট দেয় যে, হল থেকে নামিয়ে দেওয়া হবে। আমরা নাকি সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছি।

নুরুল হক বলেন, এক পর্যায়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ইমতিয়াজ উদ্দিন বাপ্পি কল নিয়ে বলেন, ছাত্রদলের সুলতান সালাউদ্দিন টুকুতে মারছি। তোদের মতো পোলাপানকে খেয়ে দিতে দুই সেকেন্ডও লাগে না। তোগোরে গুলি কইরা মারি নাই শুধু কিছু সিনিয়রের নিষেধ ছিল। তবে তোরা বাঁচবি না। কিছুদিন পর প্রজ্ঞাপনটা জারি হোক। দেখি তোদের কোন বাপ ঠেকায়।’

তিনি আরও বলেন, তার ১০ মিনিট পরে কক্ষে পিস্তল নিয়ে এসে বলে, তোরা মা-বাবার কাছ থেকে দোয়া নিয়ে নে। তোরা বাঁচবি না। তোদের গুলি করে মারব। আমাকে (নুরুল হক নুর) মারতেও আসে। তারা আমার মোবাইলও নিয়ে যায়। যাতে আমি রেকর্ড করতে না পারি। আমরা এখন জীবননাশের হুমকির মুখে আছি। গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুহসীন হলে ১১৯ নম্বর কক্ষে এ ঘটনা ঘটে বলে জানান আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে ছাত্রলীগ নেতা ইমতিয়াজ বুলবুল বাপ্পী বলেন, নুর আমাদের এক ছোট ভাইয়ের ফেসবুক আইডি হ্যাক করেছে। এজন্য আমার ছোট ভাইকে নিয়ে আমি তার রুমে গিয়েছি। তার রুমে গেলে সে আমার সঙ্গে বাজে ব্যবহার করে। পরে আমি তাকে বলেছি সিনিয়রের সঙ্গে তুমি এমন বেয়াদবি করতে পারো না। এই কাজটা তুমি ঠিক করোনি। আর তাকে আমি কোনও ধরনের কোনও হুমকি দেইনি।

এদিকে হত্যার হুমকিতে জিডি করতে গেলে তা নেয়নি শাহবাগ থানা পুলিশ। আন্দোলনের নেতৃত্বে থাকা চার যুগ্ম আহ্বায়কের নিরাপত্তা চেয়ে ৪টি ও সব আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা চেয়ে ১টি জিডি করতে বুধবার দুপুরে শাহবাগ থানায় গেলে জিডি নেয়নি পুলিশ।

সংবাদ সম্মেলনের আগে কোটা আন্দোলনকারীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল করেন। মিছিলটি কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে শুরু হয়ে ডাকসু, কলাভবন হয়ে রোকেয়া হলের সামনে গিয়ে টিএসসিতে গিয়ে শেষ হবে। এরপর সংবাদ সম্মেলন শেষ হলে তারা শাহাবাগ থানায় জিডি করতে যান।

এই মুহূর্তে অন্যরা যা পড়ছে

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 18
    Shares