Home / সারাদেশ / নোয়াখালীর কবিরহাটে নোটিশ বিহীন উচ্ছেদ অভিযান

নোয়াখালীর কবিরহাটে নোটিশ বিহীন উচ্ছেদ অভিযান

ক্রাইম প্রতিদিন,সালাহ উদ্দিন সুমন,নোয়াখালী: কবিরহাট উপজেলার চাপরাশির হাট ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সামনে দোকানঘর নোটিশ ছাড়াই ভাংচুর ও দখল করে নেন ইউনিয়ন ভূমি অফিস। কবিরহাট উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শরীফুল ইসলাম, সহকারি কমিশনার (ভূমি) শিরিন আক্তার এবং ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা মোঃ আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে গত বৃহস্পাতিবার সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত এই ভাংচুর অভিযান চলে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, চাপরাশির হাট ভূমি অফিস টি কাচারি বাড়ি নামে পরিচিত। এই ভূমি অফিস টি মোট ৭৩ ডিং সম্পতি দখল করে নেন।
এই সম্পতি পাশ্ববর্তী সুলতান গংরা মালিকানা দাবি করে। আবদুল আউয়াল বাদী হয়ে সদর সহকারি জজ আদালতে একটি পিটিশন মামলা দায়ের করেন। যার নং ২৯০/ ২০১৭, তারিখ: ১৩-০৫-১৭ ইং। আদালত এই ভূমির উপর ১৪৪ ধারা জারি করেন।

পরবর্তীতে তা বাতিল করে স্থিতিশীল অবস্থা বজায় রাখার স্বার্থে বাদী ও বিবাদীকে যে যেই ভাবে আছে মামলা নিস্পতি না হওয়া পর্যন্ত সেই ভাবে থাকার নির্দেশ দেন।

এই ভূমির সীমানার সামনের অংশে কয়েকটি দোকান ঘর। গত বুধবার সীমানার সামনের অংশে লাল পতাকা লাগিয়ে দেন এবং বৃহস্পতিবার সকালে ভাংচুর করে দখল নিয়ে ভাউন্ডারি দেওয়ালের কাজ শুরু করেন।

বাদী আবদুল আউয়াল আদালতের শরনার্পন্ন হয়ে ঐ দিনই ১৪৪ ধারা জারি করান। জারি কারক বৃহস্পতিবার দুপুর ১.৩০ মি: ভূমি অফিসের সামনে পৌঁছলে ভাংচুরের নেতৃত্বদানকারি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা নোটিশ টি গ্রহন না করে তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখে।

বিকাল ৪টায় তাদের ভাংচুর ও দখলের কার্যক্রম শেষ হলে জারিকারক নুরুল হক থেকে নোটিশটি গ্রহন করেন। বাদী আবদুল আউয়াল বলেন, সাধারণত কোনো সরকারি সম্পতি বা মালিকানা সম্পতিও দখল মুক্ত করতে হলে দখল কারিকে ৭ দিন আগে নোটিশ প্রদান করতে হয় ।

কোনো নোটিশ না দিয়ে অতি উৎসাহি হয়ে এই ভাংচুরের অভিযান পরিচালনা করেন, কার স্বার্থে?। একজন আইনের লোক হয়ে বেআইনি ভাবে এই অভিযান পরিচালনা করা কতটুকু যুক্তিযুক্ত তা বোধগম্য নয়।

এই মামলাটি আদালতে বিচারাধীন আছে। আমরা আইনকে শ্রদ্ধা করি, আদালত যে সিদ্ধান্ত দিবেন, আমরা তা মাথাপেতে নিবো।

এই ব্যাপারে ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা বলেন, এই সম্পতি সরকারের, আদালতে আবদুল আউয়াল বাদী হয়ে মামলা করেছেন, তা বিচারাধীন আছে। নোটিশ ছাড়া ভাংচুর প্রসঙ্গে বলেন, এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) স্যাররা জানেন।
তিনি আরো বলেন, জারিকারক থেকে আমরা নোটিশ গ্রহন করে তাকে আপ্যায়নের মাধ্যমে বিদায় দিয়েছি।

কবিরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শরীফুল ইসলাম বলেন, এই ব্যপারে আমার সাথে কথা বলতে হলে সরাসরি আমার অফিসে এসে কথা বলুন। অথবা আদালত থেকে জেনে নিন।

জেলা প্রশাসক মাহবুব আলম তালুকদার বলেন, রাষ্ট্রের সম্পতি দখল মুক্ত করতে কোনো নোটিশ দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। এটা রাষ্ট্রের স্বার্থে করা হয়। দেখুন রাস্তার ফুত-পাত থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে কোনো নোটিশ লাগে না । ভ্রমমান আদালতের মাধ্যেমে উচ্ছেদ করা হয়। চাপরাশির হাটের উচ্ছেদ অভিযানের ঘটনা আমি অবগত আছি।

Print Friendly, PDF & Email

এই মুহূর্তে অন্যরা যা পড়ছে

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 44
    Shares
x

Check Also

ফারুক খানের জন্মদিন পালন করেছেন ঢাকাস্থ গোপালগঞ্জ জেলা ছাত্র-যুব ঐক্য পরিষদ

ক্রাইম প্রতিদিন : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক ...