Home / সারাদেশ / নড়াইলে পুলিশের উপস্থিতিতে ১৬ বাড়ি ভাংচুর, লুটপাট

নড়াইলে পুলিশের উপস্থিতিতে ১৬ বাড়ি ভাংচুর, লুটপাট

ক্রাইম প্রতিদিন, উজ্জ্বল রায়, নড়াইল : নড়াইলের দিঘলিয়া ইউপি চেয়ারম্যন লতিফুর রহমান পলাশ হত্যা মামলার আসামী পক্ষের ১৬ টি বাড়িঘর পুলিশের উপস্থিতিতে ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রাত ১০টার দিকে উপজেলার কুমড়ি গ্রামের পশ্চিম পাড়ায় এ ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে লোহাগড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে ভাংচুরের ঘটনায় থানায় মামলা হয় নাই। পুলিশ ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দিঘলিয়া ইউপির চেয়ারম্যন শেখ লতিফুর রহমান পলাশ কে গত ১৫ ফেব্রুয়ারী লোহাগড়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে গুলি ও পরে কুপিয়ে হত্যা করে দুবৃর্ত্তরা। হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহত পলাশের ভাই সাইফুর রহমান হিলু বাদী হয়ে গত মাসের ১৭ ফেব্রুয়ারী ১৫ জনকে আসামী করে লোহাগড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ক্ষতিগ্রস্থরা জানান, হত্যাকান্ডের জের সোমবার (৫মার্চ) রাত ১০টার দিকে নিহত পলাশ সমর্থিত কুমড়ি গ্রামের কামাল, তরু, লিপন, সাইফুল, শফিকুল, ইমামুল, আমিনুল, মিজানুর, হাসানুর, জিল্লু, জিয়ার, ফারুক, আহাদ সরদার, হাসিবুর, সবুজসহ ৩০/৪০ জনের একদল দুবৃর্ত্ত দেশীয় অস্ত্র-রাম দা, ছ্যান দা ও লাঠিসোঠা নিয়ে সেনা সদস্য খায়রুজ্জামান, রফিকুল শেখ, বোরহান, ইরান শেখ, মশিয়ার গাজী, আজিজুর শেখ, নুর ইসলাম শেখ, ইসমাঈল শেখ, আইয়ুব শেখ, জামাল শেখ, হীরাঙ্গীর শেখ, সৈয়দ এনায়েত আলী, সৈয়দ লিয়াকত আলী, আকরাম, আরব আলী, আজিজুল হক সাকু’র বাড়িতে চড়াও হয়ে ব্যাপক ভাংচুর ও ঘরের আসবাবপত্রসহ মূল্যবান জিনিষপত্র তছনছ করে। এ সময় দুবৃর্ত্তরা বোরহান শেখ’র নতুন একটি ইজি-বাইক, রফিকুল শেখের মোটর সাইকেল ভাংচুর করে। দুবৃর্ত্তরা মাখন গাজীর স্ত্রী নাসরিন বেগমের বাড়ি থেকে ৬ হাজার টাকা, আজিজুল হক সাকুর স্ত্রী রুমা বেগমের বাড়ি থেকে ২ হাজার ৫’শ টাকা এবং নুর ইসলামের স্ত্রী খাদিজা বেগমের এক জোড়া কানের দুল ও ২হাজার ২’শ টাকা ছিনিয়ে নেয়।

কুমড়ি গ্রামের পশ্চিম পাড়ায় ভাংচুরের সময় পুলিশ কুমড়ি গ্রামেই অবস্থান করছিল বলে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন। রাতেই লোহাগড়া থানার উপ-পরিদর্শক কেএম জাফর আলীর নেতেৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। নিহত চেয়ারম্যান পলাশের ভাই মুক্ত রহমান বলেন,ভাংচুরের সাথে আমার ভাই নিহত চেয়ারম্যান পলাশের পক্ষের কোন লোকজন জড়িত নয়। হত্যা কান্ডের মামলাটিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য একটি কুচক্রি মহল এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে। এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ শফিকুল ইসলাম, নড়াইল জেলা অনলাইন মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি উজ্জ্বল রায়কে জানান, কয়েকটি বাড়ি ভাংচুর হয়েছে, তবে লুটপাট হয়নি। ভাংচুরের সাথে কারা জড়িত তদন্ত করে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

আরও পড়ুন.......

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 36
    Shares