সংবাদ শিরোনাম
Home / সারাদেশ / ফরিদগঞ্জে পানির অভাবে ১৫ একর জমির বোরো ধান বিনাশের পথে

ফরিদগঞ্জে পানির অভাবে ১৫ একর জমির বোরো ধান বিনাশের পথে

ক্রাইম প্রতিদিন, নুরুন্নবী নোমান, ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর) : ফরিদগঞ্জ উপজেলার উত্তরাঞ্চলের বোর চাষিরা সঠিক সময় সেচের পানি সরবরাহ না পাওয়ায় এবার প্রায় ১৫শ’ একর জমির বোরো ফসল উৎপাদ নিয়ে কঠিন শঙ্কায় রয়েছে। স্থানীয় কৃষকদের দাবী সঠিক সময় খাল খনন ও গাজীপুর- চান্দ্রা – বেড়ী রাস্তা উপর দুটি ব্রিজের কাজ চলায় সেচের পানি সরবরাহে দারুন বেঘাত ঘটেছে। এতে করে স্থানীয় কৃষকরা বোরোর ভরা মৌসমে তাদের বীজ তলা এবং ধানের চারা রোপণ করতে পারেনি। এদিকে, গাজিপুর – চান্দ্রা এবং চান্দ্রা বাজার সংগ্নে দুটি ব্রিজের কাজ চলছে। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান প্রথমে বিকল্প ব্যবস্থায় পানি সরবরাহ না করলেও উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সংবাদিকদের হস্তক্ষেপে পাইপের মাধ্যমে পানি চলাচলের ব্যবস্থা করে। কিন্তু সেচের পানি সরবরাহের খালগুলো দীর্ঘদিন খনন না করায় ডাকাতি নদীর পানি সেচ এলাকায় ঢুকতে দারুন ভাবে বিঘœ ঘটছে। ফলে, কৃষকদের দুর্ভাগ্য আবাদকৃত বোরো ধান ক্ষেত পানির অভাবে ফেটে চৌচির । পানির জন্য ওই এলাকার কৃষকরা হাহাকার করছেন।

সরেজমিনে কয়েকটি এলাকায় দেখা যায়, পানির অভাবে বোরো ক্ষেতে ফাটল দেখা দিয়েছে। অনেক ক্ষেতের ধান গাছ মরে গিয়েছে। প্রতিটি কৃষকের চোখেমুখে হতাশার ছাপ। কৃষকরা জানান, এবার সেচ দিতে না পারায় গাজীপুর, পালতালুক, উপাদীক, কড়ৈতলী ও শাশিয়ালী, বালিথুবা, শোশাইচর, মানিকরাজ, দেইচর, মুলপাড়া, ইসলামপুর, রাজাপুরসহ বেশ কিছু গ্রামের সেচ এলাকায় পানি সরবরাহের খাল গুলো খননের অভাবে ভরাট হয়ে যাওয়ায়,পানি উন্নয়ণ বোর্ড মূল ডাকাতিয়া নদীতে পানি সরবরাহ করলেও সেচ প্রকল্প এলাকার কৃষকরা পানি পাচ্ছে না। ফলে, প্রায় ১৫শ’ একর জমিতে আবাদ করা বোরো হুমকির মুখে।

কৃষক- মো: সফিউল্যা তপদার, বলেন তার প্রায় ৭০ একর জমির বোরো চাষাবাদ পানির অভাবে এই বছর বন্ধ রয়েছে। এর সাথে চলতি মৌসুমে একই এলাকার স্কীম ম্যানেজার মো: মাহবুব ভুঁইয়ারও ৫০ একরের পানির অভাবে বন্ধ রয়েছে। ফলে প্রায় শতাধিক কৃষি জমির মালিক ও চাষী তাদের জমিতে কোনো ফসল ফলাতে না পারায় তাদের পরিবারের সদস্যদের সারা বছরের খাদ্য সংকট পড়ার অশঙ্কায় রয়েছেন। সেচ এলাকার দায়িত্বে থাকা পানি উন্নয়ণ বোর্ডের অভারশিয়ার গিয়াস উদ্দীন বলেন- আমরা বছরের শুরুতে ডাকাতিয়া নদীর মাধ্যমে সেচ এলাকায় পানি সরবরাহ করেছি, খল খননসহ কিছু কৃত্রিম সংকটের ফলে সঠিক সময় বোরো চাষিদের কাছে পানি না পৌছার কারণে কৃষকদের আজ এই সংকট সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার, মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান জানান- রোরো চাষের শুরুতে সেচের পানি সরবরাহের খালের উপর ব্রীজের কাজ করার সময় পানি চলাচলে বাঁধা সৃষ্টি হয়। আমরা তাৎক্ষণিক লিখিত ভাবে সংশ্লিষ্ট বিভাগকে অবগত করলে, বিকল্প ব্যবস্থায় পানি সরবরাহ করা হয়। তাছাড়া, দীর্ঘদিন যাবত সেচের খালগুলো বিএডিসি খনন না করায় পানি চলাচলে মারাত্মক বাঁধা সৃষ্টি হয়। আমাদের লোকজন আপ্রাণ চেষ্টা করেছে কৃষদের যেন বোরো চাষে কোন সমস্যা না হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন- স্থানীয় কৃষক ও উপজেলা সমবায় নেতা ও আ’লীগের সভাপতি আবুল খায়ের পাটওয়ারী বিষয়টি নিয়ে আমার সাথে যোগাযোগ করলে, আমি তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিয়ে মোটামুটি বেশ কিছু এলাকায় বিকল্প ব্যবস্থায় পানি সরবরাহ করার চেষ্টা করেছি। তাছাড়া, বোরো চাষকৃত এলাকায় গিয়ে পানি চলাচলের বাঁধাগুলো সনাক্ত করে ইউপি চেয়ারম্যান ও ব্রীজের কাজ যে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান করছে তাদের দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ছবির ক্যাপশান:- ফরিদগঞ্জ উপজেলার প্রায় ১৫ একর জমির বোরো ফসল পানির অভাবে বিনাশের পথে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এএইচএম কৃষকের অভিযোগে পানি সরবারহের স্থান পরিদর্শন করছে।

Print Friendly, PDF & Email

আরও পড়ুন.......

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 79
    Shares