Home / আন্তর্জাতিক / ফেরিওয়ালাদের বাড়িতে ডেকে প্রাণ গেল বউ-শাশুড়ির!

ফেরিওয়ালাদের বাড়িতে ডেকে প্রাণ গেল বউ-শাশুড়ির!

ক্রাইম প্রতিদিন : প্রেশার কুকার ফেরি করার নামে বাড়িতে ঢুকে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে একদল যুবকের বিরুদ্ধে। ধর্ষণের খবর শুনে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হলো শাশুড়ির।

শনিবার ভারতের পূর্ব মেদিনীপুরের এগরা থানার বড়নলগেড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। ২৫ বছর বয়সী গৃহবধূকে ঘরের মধ্যে একা পেয়ে মুখ চেপে রেখে দুষ্কৃতীরা তাকে ধর্ষণ করে। বাইরে থেকে কিছুক্ষণ পর শাশুড়ি বাড়ি ফিরে এ খবর শুনে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

স্থানীয় সূত্রে খবর, নির্যাতিতার স্বামী কর্মসূত্রে বাইরে থাকেন। শনিবার নির্যাতিতার শ্বশুর নগেন্দ্রনাথ পাল ও শাশুড়ি গঙ্গারানী পাল কেউই বাড়িতে ছিলেন না।

সেই সময় ৩ বছর বয়সী ছেলেকে নিয়ে বাড়িতে ছিলেন ওই গৃহবধূ। অভিযুক্ত ছয়জন যুবক একটি মারুতি ভ্যানে এসে তার ঘরের সামনে দাঁড়ায়। তারা প্রেশার কুকার ফেরি করে বলে জানায়।

প্রেশার কুকার ফেরি করার নামে এসে ওই নারীর বাড়ির মধ্যে ঢুকে পড়ে দুষ্কৃতীরা। সেই সময়ে ওই গৃহবধূ একাই ছিলেন। অভিযুক্তরা ওই গৃহবধূকে প্রথমে শ্লীলতাহানি এবং পরে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ ওঠে।

ওই নির্যাতিতার চিৎকার শুনে গ্রামবাসীরা যুবকদের হাতেনাতে ধরে ফেলে এবং তাদের বেধড়ক মারধর করে।

নির্যাতিতার শাশুড়ি গঙ্গাদেবী এই খবর পেয়ে তার মেয়ের বাড়ি থেকে নিজের বাড়িতে এসেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষণা করেন।

ঘটনার খবর পেয়ে স্থানীয় থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তাদের ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীরা। ক্ষোভে ফেটে পড়েন মৃতার আত্মীয় ও পরিজনসহ গ্রামবাসীরা।

পরে অভিযুক্ত ছয়জনকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়। তবে এখনও পর্যন্ত অভিযুক্তদের পরিচয় জানা যায়নি। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে এগরা থানার পুলিশ।

Print Friendly, PDF & Email

আরও পড়ুন.......

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 77
    Shares