Home / খেলাধুলা / সময়ের সেরা ফর্মে দুই ভায়রা-ভাই

সময়ের সেরা ফর্মে দুই ভায়রা-ভাই

ক্রাইম প্রতিদিন: নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে বাংলাদেশ। যার নেপথ্যের নায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিম। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে যে দুটি জয় এসেছে। ঐ দুটি ম্যাচেই মুখ্য ভূমিকা রেখেছেন মুশফিক ও রিয়াদ। ফাইনাল জয়ের স্পট লাইট তাদেরকে ঘিরেই। কারণ সময়ের সেরা ফর্মে আছেন এই দুই ভাইরা ভাই। তাই এই দুই স্বপ্ন সারথিদের দিয়েই তাকিয়ে টাইগার সমর্থকরা। ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্ব আসরে ভারতের বিপক্ষে জয়ের দ্বারপ্রান্তে বাংলাদেশ। ৩ বলে ২ রান প্রয়োজন ছিলো। কিন্তু, কে জানতো অনেক জয়ের কারিগর মুশফিক আর রিয়াদরা পারবেন। পারেননি তাই অশ্রুজলে সিক্ত হতে হয়েছিলো লক্ষ কোটি সমর্থকদের। ঐ হারে অনেকেই রিয়াদ মুশফিকদের কাঠগড়ায় তুলেছিল।

ভাগ্যে আর বাস্তবতা বাংলাদেশের পক্ষে ছিলো না বলেই হয়তো অমনটা হয়েছিলো। কিন্তু, অতীতে বাংলাদেশের অনেক জয়ের তাদের অবদান ছিলো অপরিসীম। দুই বছর পর আরেক টি-টোয়েন্টি আসরের ফাইনাল। এখানেই প্রতিপক্ষ ভারত। এবার প্রেমাদাসায় ঐ বেঙ্গালুরুর ট্র্যাজেডির শোধ নিতে চান রিয়াদ-মুশফিকরা।

কারণ এই দু’জনে এবারে স্বপ্ন দেখাচ্ছেন বাংলাদেশকে। আসরে ১৯০ রান করে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রহক মুশফিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ক্যামিও ইনিংসে মুগ্ধ করেছিলেন বাংলাদেশকে। মুশি পুরো আসরে দারুণ ধারাবাহিক। ভারত বধেও মুশফিকের দিকে তাকিয়ে বাংলাদেশ।

এরপর ফাইনালে উঠতে আবারো প্রতিপক্ষ ছিলো লঙ্কানরা। ক্ষণে ক্ষণে রং বদলানোর ম্যাচে টাইটানিক জাহাজের মতো ডুবছিল বাংলাদেশের জয়ের সম্ভাবনা। কিন্তু, মাহমুদুল্লাহ তো সর্বোচ্চ স্নায়ু-চাপ উত্তরে দলকে টেনে নিয়েছেন জয়ের বন্দরে।

স্টেডিয়ামের কৃত্রিম আলোয় মাহমুদুল্লাহ সাদা বলটা রঙ্গিন স্বপ্ন বানিয়ে উড়িয়ে ফেলেছেন প্রেমাদাসার গ্যালারিতে। বল আছরে পরার সাথে শ্রীলঙ্কার স্বপ্ন চূর্ণ হয়েছে আর মাহমুদল্লাহ বাংলাদেশকে রূপ দিয়েছেন আরো একটি স্বপ্ন দেখতে।

কিন্তু, ইতিহাস বলছে ফাইনালের মঞ্চে বাংলাদেশ বরাবরই বিবর্ণ। তবে, এবার হবে কিছু অনন্য। কারণ মুশফিক আর রিয়াদ দুই ভাইরা ভাই ফর্মের তুঙ্গে আছেন। অতীতের সব জেদ পুষে রেখেছেন। রক্ত টগবগ করছে। এবার সামর্থ্যের সব নিংড়ে দিয়ে অধরা ফাইনালে জিতার কঠোর প্রতিজ্ঞা। জিতে যাক একজন মুশফিক /জিতে যাক একজন মাহমদুল্লাহ। ওরা জিতলেই তো জিতে যায় প্রিয় বাংলাদেশ।

Print Friendly, PDF & Email

এই মুহূর্তে অন্যরা যা পড়ছে