Home / সারাদেশ / সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ

সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ

ক্রাইম প্রতিদিন, হাসান তামিম, বেনাপোল : দেশের সনামধন্য কুরিয়ার ও পার্সেল সার্ভিস সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস এর বেনাপোল শাখায় কর্মরত কোম্পানীর দ্বায়িত্বরত কর্মকর্তা সহ কর্মচারীদের কর্তব্যে গাফিলতি,অনিয়মের ফলে গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ মিলেছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত হতে অতি জরুরী ডকুমেন্টস,ডাক ও পার্সেল ধ্যার্য কৃত অর্থ পরিশোধ এর বিনিময়ে দ্রুত গ্রাহকের দ্বার গোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার কথা থাকলেও সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের বেনাপোল শাখায় কর্মরতরা নিয়মনিতীর তোয়াক্কা না করে খেয়ালখুশি মত কাজ চালিয়ে বেনাপোল শাখাটি অনিয়মের আখড়ায় পরিনত করেছে।ফলে প্রতিষ্ঠানটির বেনাপোল শাখা হতে গ্রাহকরা প্রকৃত সেবা না পেয়ে প্রতিনিয়ত হয়রানী হচ্ছে।বেনাপোল বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ শাহিনুর রহমান প্রতিষ্ঠানটির বেনাপোল শাখার বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ তুলে জানান,গত ২১-৬-২০১৭ ইং তারিখে ঢাকা অফিস হতে সি,এন নংঃ-৭২৭৯৪৫৫৮ মারফত হোম ডেলিবারির ধ্যার্যকৃত মূল্য পরিশোধ সাপেহ্ম্যে একটি জরুরি ডাক বুক দেন তার এক আত্বিয়।নিয়ম অনুযায়ী ২৪ ঘন্টা বা অতিরিক্ত সময় পর তার ডাক পাওয়ার কথা থাকলেও তিনি তা পাননী। এমন কি বেনাপোল শাখা হতে প্রাপক শাহিনুরের সাথে মেমোতে থাকা মোবাইল নাম্বারেও কোন প্রকার যোগাযোগ করা হয়নী।এতে করে তার ব্যবসার বড় হ্মতি হয়েছে বলে দাবী জানিয়ে বলেন কাগজপত্রের ডাক না পেয়ে বুকিং করা আতিœয়কে পুনরায় জিঙ্গাসা শেষে নিশ্চিত হন প্রতিষ্ঠানটির ধানমন্ডি শাখায় ধ্যার্য কৃর্ত টাকা পরিশোধ করে তিনি ২১ তারিখে জরুরি কাগজপত্রের ডাক পাঠিয়েছেন।নিরুপায় হয়ে তিনি নিজে ৫-৭-১৭ তারিখে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস শাখার বেনাপোল অফিসের দ্বায়িত্বরত ম্যানেজার হাসানএর মুঠো ফোনের নাম্বার সংগ্রহ করে ঢাকা হতে পাঠানো জরুরী ডাকের বিষয় জানতে চাইলে তিনি অফিসিয়াল অনুসন্ধান শেষ করে জানান ডাকটি পুনরায় ঢাকায় ফিরে গেছে। ভ’ক্তভোগী শাহিনুর রহমান বেনাপোল শাখার কর্মরতদের কর্মকান্ডে অনিয়মের প্রমান দিতে জানান বিগত দুই মাস আগেও তাকে বেনাপোল সুন্দরবন অফিস হতে ফোন দিয়ে হোম ডেলিবারির চার্জ পরিশোধীত ডাক লোকবল কম থাকার অজুহাত দেখিয়ে নিয়ে যেতে বলে। অগ্যত কাজ ফেলে সে নিজে অফিসে গিয়ে ডাক সংগ্রহ করে।সে সময় তিনি আরোও অনেক জনকে একই প্রশ্নে বেনাপোল অফিসে কর্মরতদের উপর চড়াও হতে দেখেছে।এ ব্যাপারে বেনাপোল শাখায় দ্বায়িত্বরত অপর ম্যানেজার আবিরের (০১৯৭৩৪০০৩৬৫) সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান তাদের স্টাফ প্রাপককে খুজে না পাওয়ায় ডাক ফেরত গেছে।একই ব্যাক্তি ডাক একমাস আগে আপনাদের ফোন কলে পেল, পরেরটা নিজে অফিসে যায়নী বলে পেলনা এমন প্রশ্নে তিনি সদ উত্তর দিতে না পেরে ফোন রেখে দেন।সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের বেনাপোল শাখার কর্মরতদের অনিয়ম,দূর্নিতী ও গাফিলতির অনুসন্ধানে খোজ নিতে অফিসে কর্মরতকে কৌশলে জিঙ্গাসাবাদ করলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শর্তে ক্রাইম প্রতিদিনকে জানান,মুলত বেনাপোল শাখায় পার্সেল এর চাপ বেশী তাই অন্য বিষয়ে গুরুত্ব কম দেওয়া হয়।কুরিয়ার সার্ভিসে নিয়মিত পন্য বুকিং দেওয়া মনির নামের এক ব্যক্তি জানান,বেনাপোল শাখার ম্যানেজাররা টাকার বিনিময়ে অবৈধ্য সেবা দিতে দিতে টাকা বাদে স্বচ্ছ গ্রাহক সেবা দেওয়া ভ’লে গেছে।প্রকাশ থাকে যে বেনাপোল সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের বেনাপোল শাখা হতে প্রচুর পরিমান চোরাই পথে আনা পন্য যেমন,শাড়ী ,থ্রীপীচ,অসুধ ও কসমেটিক পন্য চালান ডাক যোগে নিয়মিত বুকিং নেওয়া হয়।এমন কি অবৈধ্য অস্ত্র ও জাল কাগজে শুল্ক ফাঁকির পন্য উদ্ধারের মত বহু ঘটনা রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির বেনাপোল শাখায়।

আরও পড়ুন.......

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 41
    Shares