Home / এক্সক্লুসিভ / ৬ কোচিং সেন্টারের লাইসেন্স বাতিল : দু’টি তালাবদ্ধ

৬ কোচিং সেন্টারের লাইসেন্স বাতিল : দু’টি তালাবদ্ধ

ক্রাইম প্রতিদিন : সাইনবোর্ড, পোস্টার, ফেস্টুন ও ওভারহেড সাইনবোর্ড ছাড়াও অননুমোদিত প্রচারণার দায়ে ট্রেড লাইসেন্স বাতিল হওয়া ৬ টি কোচিং সেন্টারের মধ্যে ইউনিএইড এবং আইকন নামের ২টিই রয়েছে তালাবদ্ধ। ইউসিসি, আইকন প্লাস, ওমেকা ও প্যারাগন নামের বাকি ৪টি লাইসেন্স ফিরে পাওয়ার জন্য সিটি করপোরেশন বরাবর আবেদন করবেন বলে জানা গেছে। লাইসেন্স বাতিলের যে অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধে আনা হয়েছে তা অনেক আগের বলে দাবি করছেন তারা। গত ২৫ অক্টোবর অননুমোদিত প্রচারণার দায়ে তাদের লাইসেন্স বাতিল করে চিঠি ইস্যু করেছিল ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। তারপর থেকেই ভুক্তভোগী কোচিং সেন্টার ব্যবসায়ীদের মাঝে বিরাজ করছে অস্থিরতা। শিক্ষার্থীদের আকৃষ্ট করে যে নানান রঙের ব্যানার-পোস্টার সাঁটানো ছিল তা এখন নেই বলে জানা গেছে। কোচিং সেন্টারের কর্তৃপক্ষরা এসব ব্যানার-পোষ্টার ইতোমধ্যেই সরিয়ে ফেলেছেন।

গতকাল (২৬ ডিসেম্বর) ডিএনসিসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে মূলত ফার্মগেটের ইউসিসি, ইউনিএইড, আইকন, আইকন প্লাস, ওমেকা ও প্যারাগন কোচিং সেন্টারের লাইসেন্স বাতিলের বিষয়টি জানাজানি হয়।

এদিকে, ৩৩ বছরে এ ব্যবসায় বড় ধরণের আঘাত এ প্রথমই পেয়েছে ইউসিসি। বাণিজ্যিকভাবে শুরু করার পর থেকে রাজধানীর মোট ১২টি এবং সারা দেশে আরো ৭১ টি শাখা রয়েছে তাদের। রাজধানীর গ্রিনরোডের নিজস্ব এএইচপিএফ টাওয়ারে পরিচালিত হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শাখা।

লাইসেন্স বাতিল করায় বড় ধরণের আঘাতের পাশাপাশি বিপাকে ও পড়েছে কোচিং সেন্টারটির সংশ্লিষ্ঠ স্টাফরা। তেমনটিই জানিয়েছে প্রধান শাখার স্টাফরা।

ইউসিসি গ্রুপের এক কর্মকর্তা জানান, যে অভিযোগ তোলা হয়েছে তা ভিত্তিহীন। পরিদর্শনের সময় পুরনো ছবি দেখানো হয়েছে। তিলে তিলে বটবৃক্ষে পরিণত হয়েছে ইউসিসি। বিভিন্ন স্থানে দু’একটি পোস্টার থাকতে পারে। আমাদের যে নোটিশ দেওয়া হয়েছিল তার জবাব দিয়েছি।

তিনি বলেন, ৩৩ বছরের প্রতিষ্ঠানে আমাদের মূল শাখাতেই অর্ধশত স্টাফ। এতো পুরনো প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাবে, এটা মানা যায় না।

তার দাবি, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির দিকনির্দেশনা দিয়ে ভর্তিচ্ছুদের সহযোগিতা করে কোচিং সেন্টারগুলো। একইভাবে কর্মসংস্থানের সুযোগও হয়েছে। হঠাৎ করে বন্ধ করে দেওয়া মানে একটা বিপদে পড়া।  সিটি করপোরশনের কাছে লাইসেন্স ফিরে পেতে আবারও আবেদন করা হবে বলে জানান তিনি।

৪৮ গ্রিনরোডে ভাড়া ভবনে পরিচালিত হচ্ছে আইকন প্লাস। ২০১২ সালে আইকন নামে পরিচালিত হলেও নিজেদের দ্বন্দ্বে ভাগ হয় ২০১৪ সালে। ‘আইকন প্লাস’ নাম দিয়ে নতুন আরেকটি কোচিং পরিচালনা করছেন তারা। নিচতলায় প্রবেশ করে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে উত্তেজিত হয়ে যান পরিচালক কামাল উদ্দিন। ছবি তুলতেও বাধা দেন। বলেন, আপনারা সাংবাদিকরাই দায়ী।
পরে শান্ত হয়ে বিনয়ের সুরে নিজেদের অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন পরিচালক কামাল। বলেন, আমাদের নামে যে অভিযোগ তা পুরনো। এখন কোনো পোস্টার নেই। পাশেই মোবাইল শো রুম, একটি হোটেল বিল্ডিং জোড়া ব্যানার দিয়ে রেখেছে। এগুলোতে কি সৌন্দর্য বাড়ছে? দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেলে কোর্টে যাবো।

কথা বলার সময় সেখানে অভিভাবক হারুন অর রশিদ টাঙ্গাইল থেকে এসেছেন মেয়েকে ভর্তির জন্য। ঢাকার মাইলস্টোন থেকে পাস করা মেয়ের ব্যাপারে তিনি বলেন, গতবছর মেডিকেল কোচিং করেছিল, চান্স হয়নি। এবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য কোচিং করাবো।

রোডে ১৩১/বি ঠিকানায় তিনতলায় উঠে দেখা গেলো বসে আছেন দুই স্টাফ। সাংবাদিক পরিচয়ে নিজেদের আসন্ন দুর্গতি তুলে ধরলেন নাজমুল কাজী ও তানজিল হাসান।

হাসান বলেন, বন্ধ হলে আমাদের এখান থেকে চলে যেতে হবে। বিপদে পড়ে যাবো। যখন অভিযোগ এসেছে আমরা দেয়াল লিখন মুছে ফেলেছি, এখন দেখেন ছোট সাইনবোর্ড।

সিটি করপোরেশন নির্দেশনা দেওয়ার পর আর পরিদর্শন না করেই লাইসেন্স বাতিল করেছে বলে অভিযোগ করেন নাজমুল।
তারা জানান, যারা বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়েছে কোচিংয়ের পরিচালকরা তাদের নিয়ে কক্সবাজার গেছে। সেখান থেকে এলে জানা যাবে পরবর্তী পদক্ষেপ।

পোস্টার-ব্যানারে শহরে সৌন্দর্য বিনষ্ট হলেও বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের জন্য ওমেকা কোচিং সেন্টারের স্টাফ তিতুমীরের দাবি, শহরের কোথাও আমাদের পোস্টার নেই। কয়েকটি লিফলেট আকৃতির কাগজ দেখিয়ে তিনি বলেন, এগুলোতে শিক্ষার্থীদের ভর্তির তথ্য থাকে। সেগুলো রাস্তায়ও ফেলে না শিক্ষার্থীরা।

মার্কেটিং অফিসার শহীদ বলেন, অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী দরিদ্র পরিবারের। তারা ঢাকা শহরে এসে কোচিংয়ে ক্লাস নিয়ে টিকে থাকে। অনেকেই পড়ালেখা শেষ করেও এই পেশায় যুক্ত। যদি লাইসেন্স বাতিল হয় তাহলে এদের কী হবে? কোচিং সেন্টার বন্ধ হলে আমরা স্টাফরাও বিপদে পড়বো। যে অভিযোগে ধরা হয়েছে সেই দোষ সবারই আছে। ধরা হলে সবাইকে ধরা হোক।

গ্রিনরোডের ১৩১/বি ঠিকানায় দ্বিতীয় তলায় আইকনের অফিস। গিয়ে দেখা যায় দুই সাটারেই তালা মারা। ওই ভবনে ব্যক্তিগত কাজে আসা একজন ব্যক্তি জানান, এটা প্রায়ই বন্ধ থাকে। এই রোডের ১০৬/এ ভবনের চারতলায় উঠে দেখা গেললো ইউনিএইডের অফিসেও তালা।

এই মুহূর্তে অন্যরা যা পড়ছে

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 17
    Shares
x

Check Also

খুব রাজনীতি করছিস, তোদের শিক্ষা দিয়ে ছাড়ব!

ক্রাইম প্রতিদিন, রাবি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) স্কুল ...