Home / ক্রাইম প্রতিদিন / অবৈধ ক্লাব স্থাপনে বাঁধা দেওয়ায় ৫ নারী ও গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

অবৈধ ক্লাব স্থাপনে বাঁধা দেওয়ায় ৫ নারী ও গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

ক্রাইম প্রতিদিন, শাহ্ আলম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : রেজিস্ট্রেশনবিহীন “বিশ্বনাথপুর তরুন যুব সমিতি” নামের একটি ক্লাব অন্যের জমিতে জোরপূর্বক স্থাপনকালে জমির মালিক বাঁধা দেওয়ায় ৫ গৃহবধূকে গাছে বেঁধে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে।

স্থানীয়দের সহযোগিতায় নির্যাতিত নারীদের আহত অবস্থায় শিবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে সাথী বেগম, লাইলী বেগম, শ্যামলী খাতুন, বিউটি খাতুনসহ ৪ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। বৃদ্ধা জুলেখা বেগমের অবস্থা গুরুতর। তাকে শিবগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মহিলা ওয়ার্ডের ৭নং কেবিনে ভর্তি রাখা হয়েছে।

এ ঘটনায় শিবগঞ্জ থানায় মামলা দায়েরের জন্য এজাহার জমা দিয়েছে৪ ভূক্তভোগী পরিবারটি। তবে তদন্ত শেষে মামলা রুজু হবে বলে জানিয়েছেন শিবগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো. মাহতাব উদ্দিন।

মাহতাব উদ্দিন বলেন, সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এসআই বাবুল। উভয়পক্ষকে কোন রকম ঝামেলা করতে নিষেধ করে আসলেও থামেনি ক্লাব কর্তৃপক্ষের ছলচাতুরী। ভূক্তভোগীদের অভিযোগ, তাদের বের হতে দিচ্ছে না ক্লাবের কয়েকজন সদস্য। সে সঙ্গে বাঁশের বেরিকেড দিয়ে বাথরুম ও টিউবওয়েলের সংযোগ রাস্তাটি ঘিরে রাখা হয়েছে। যাতে করে বাড়ির কেউ পানি নিতে কিংবা টয়লেটে যেতে না পারে।

এদিকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি থাকা জুলেখা বেগমের সঠিক সেবা প্রদান করছে না বলে নার্সদের বিরুদ্ধেও অভিযোগ উঠেছে জুলেখা বেগমের পরিবারের পক্ষ থেকে। তিনি জানান, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্সরা তাকে কেবিন থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করছে। তবে সংবাদকর্মীদের উপস্থিতি টের পেয়ে পুনরায় তাকে কেবিনে অবস্থান নিতে বলে।

এদিকে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য মো. পলাশ আলী স্বাক্ষরিত এজাহার সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তাদের পৈতৃক সূত্রে পাওয়া জমিতে জোরপূর্বক পুরুষশূণ্য বাড়িতে ক্লাবের ঘর তৈরির কার্যক্রম শুরু করে। এ সময় জমির আসল মালিকের পরিবারে থাকা গৃহবধূসহ নারীরা বাঁধা দিলে, বখাটে টমাম, রনি, চাঁন মেম্বার, মুকুল, সেন্টু, শাহজাহান, সেলিম, জুয়েল, বাবু, শফিকুল, সুমন, আইজুল, জমিবুর, জামিল, দোলা, সাদ্দাম, আরিফ, রনি, আলা, শহিদ, জানু, আনারুল, রিপনসহ প্রায় ৩০/৩৫ জনের একটি দল দলবদ্ধ হয়ে ক্লব নির্মানে বাধাদানকারী নারীদের উপর অতর্কিত হামলা চালায় এবং গৃহবধূ সাথী বেগমকে দড়ি দিয়ে বেঁধে অমানবিক নির্যাতন চালায়।

ভুক্তভোগী প্রবীণ জুলেখার দাবী বিশ্বনাথপুর মৌজার সাবেক দাগ ১৩৭ ও হালদাগ ২৩৮ এর ৫৯ শতক জমি জবরদখলের জন্য ক্লাবের পক্ষে শিবগঞ্জ সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন (২৩২/৯৪) আলমাস উদ্দীন নামের এক ব্যক্তি। পরে মামলাটি মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় ১৬/০৫/২০০৫ সালে আদালত খারিজ করে দেন।

আবারও মামলাটি দায়রা জজ কোর্টে ৫৬/০৫ আপিল করে ক্লাবের ঐ চক্রটি। সেখানেও হার মানে অসাধু এই চক্রটি। গত ০৬/০৪/২০১০ তারিখে আদালত পুনরায় রায় প্রদান করেন ভুক্তভোগী ঐ পরিবারের পক্ষে।

তবুও হার মানতে নারাজ অবৈধ এ ক্লাবের সঙ্গে জড়িত থাকা বখাটেরা। তাই আদালতের রায়কে বৃদ্ধাঙ্গলি দেখিয়ে এবার জবরদখল করে জমি হাতিয়ে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

এই মুহূর্তে অন্যরা যা পড়ছে

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 26
    Shares