Home / জাতীয় / ‘ঈদের উপহার দিলাম ধরলা সেতু, রক্ষণাবেক্ষণ করবেন’

‘ঈদের উপহার দিলাম ধরলা সেতু, রক্ষণাবেক্ষণ করবেন’

ক্রাইম প্রতিদিন: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট ও রংপুর অঞ্চলের মানুষের জন্য ধরলা সেতুটি আমার পক্ষ থেকে ঈদের উপহার হিসেবে নেবেন। এটি আপনাদের ঈদের উপহার হিসেবে দিলাম। আপনারা এ সেতু রক্ষণাবেক্ষণ করবেন, দেখেশুনে রাখবেন।’
আজ রবিবার কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় নবনির্মিত শেখ হাসিনা ধরলা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ২০৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ৯৫০ মিটার দৈর্ঘ্যরে এ সেতু উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।
অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এ ছাড়া বক্তব্য রাখেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান ও স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি অঞ্চলে আমি গিয়েছি। কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাটের প্রতিটি উপজেলায় গিয়েছি। সেখানকার মানুষের সমস্যার কথা শুনেছি। সরকারে আসার পর এসব মানুষের উন্নয়নে নানা উদ্যোগও নিয়েছি।
শেখ হাসিনা বলেন, ধরলার প্রথম সেতু আমি উদ্বোধন করে যেতে পারিনি। তা পরবর্তী সরকার ক্ষমতা গ্রহণের মাস-দুয়েকের মধ্যে উদ্বোধন করে। কিন্তু তারা তখন বলে আগের সরকার কোনো উন্নয়ন করেনি। অথচ আমাদের করা সেতুই গিয়ে তারা উদ্বোধন করেছি। যদিও পরবর্তী সময়ে ওই সেতু দিয়ে যাতে আমি চলাচল করতে না পারি সে জন্য পাথর ফেলে তা বন্ধ করে রাখা হয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকলেই দেশের উন্নয়ন হয়। পরপর দুবার ক্ষমতায় থেকে দেশের উন্নয়ন করেছি। সরকারের ধারাবাহিকতা থাকলে যে উন্নয়ন করা যায় তা আমরা করে দেখিয়েছি।
তিনি বলেন, কুড়িগ্রামবাসী এক সময় মঙ্গাকবলিত ছিল, এখন আর তা নেই। আমরা এ অঞ্চলের বিভিন্ন এলাকার মাটি নিয়ে পরীক্ষা করে কোন মাটি কোন ফসলের জন্য উপযোগী, তা নির্ণয় করেছি। এখন এ অঞ্চলে প্রচুর ফসল উৎপাদিত হচ্ছে।
শেখ হাসিরা বলেন, আমরা ছিটমহলবাসীকে সব সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছি। বিশ্বের কোনো দেশে এত শান্তিপূর্ণভাবে ছিটমহল বিনিময়ের ইতিহাস নেই। গ্রামের মানুষ যেন শহরের মতো সব সুযোগ-সুবিধা পায় সে ব্যবস্থা আমরা করছি। এ ছাড়া প্রতিটি অঞ্চলের মানুষ যেন সমান সুযোগ-সুবিধা পায় আমরা সেভাবে কাজ করছি।
তিনি বলেন, আমার কোনো চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। মা-বাবাসহ সব হারিয়েছ। আমার লক্ষ্য একটাই এ দেশের উন্নয়ন করে যাওয়া। আমার বাবা আজীবন মানুষের জন্য সংগ্রাম করে গেছেন, তিনি স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন। আমি তার দেখানো পথে দেশের উন্নয়ন করে যাচ্ছি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের ফলে প্রত্যন্ত অঞ্চলে, এমনকি নদী বা সাগরে দুর্যোগের সময়ও মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল থাকবে। সবাই প্রয়োজনে নিজেদের অবস্থানের কথা জানাতে পারবেন। এর ফলে প্রযুক্তির প্রসার ঘটবে দেশের প্রতিটি অঞ্চলে। মানুষকে লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং প্রকল্পের মাধ্যমে শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে, তারা ইন্টারনেটে কাজ করে টাকা উপার্জন করছে, এটি আরও বৃদ্ধি পাবে।
বাংলাদেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ইনশাআল্লাহ, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে একটি উন্নত ও সমৃদ্ধি দেশ। এর সুফল ভোগ করবে দেশের মানুষ।

আরও পড়ুন.......

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 24
    Shares