Home / বাংলাদেশ / সারাদেশ / কুড়িগ্রামে সহস্রাধিক বসত বাড়ী নদী গর্ভে বিলীন

কুড়িগ্রামে সহস্রাধিক বসত বাড়ী নদী গর্ভে বিলীন

ক্রাইম প্রতিদিন, রুহুল আমিন রুকু, কুড়িগ্রাম : গত কয়েক দিনের অবিরাম বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে ধরলা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় কুড়িগ্রাম সদরের মোগলবাসা ইউনিয়নের তীরবর্তী সিতাইঝাড় এলাকায় ধরলা নদীর প্রলয়ঙ্করী ভাঙ্গনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে ঐ এলাকার মানুষ জন। গত বৃহস্পতিবার ভাঙ্গন প্রতিরোধের দূরুত্ব ব্যাবসাথা গ্রহনের ৮ দফা দাবীতে ভাটলার পাড় এলাকার মানুষ ধরলা নদীর তীরে মানববন্ধন ও বিভোক্ষ মিছিল করেন। এ সময় এলাকাবাসীর পক্ষে বক্তব্য রাখেন, মোগলবাসা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বাবলু, এরশাদুল হক, রমজান আলী, গাজিউর রহমান, জামান, সহিদুল প্রমুখ। বক্তব্যে বাবলু চেয়ারম্যান জানান, গত চার বছরে ধরলা নদীর ভাঙ্গনে ১ হাজার বিঘা আবাদী জমি, শত শত বাড়ী ঘর এবং বন্যায় আশ্রিত ওয়াপদা বাঁধের অর্ধকিলোমিটার এলাকা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এছাড়াও হুমকীর মুখে পড়েছে স্কুল, কলেজ, মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির, কালভার্ট, ব্রীজ সহ আবাদী জমি। বাড়ি ঘর হারিয়ে নিঃস্ব পরিবারগুলো অসহায়ভাবে জীবন যাপন করছে। ওই এলাকায় ভাঙ্গন অব্যাহত থাকার পরেও স্থায়ীভাবে কোন প্রটেকশন না থাকায় হতাশায় দিনাতিপাতি করছে ভাঙ্গন কবলিতরা। ফলে নারী-পুরুষ-শিশুসহ এলাকার মানুষ স্থায়ী প্রতিরোধমুলক কাজের জন্য দাবী জানান। মানববন্ধন শেষে বিভোক্ষ মিছিল নিয়ে এলাকার মানুষ জেলা প্রশাসক মোছাঃ সুলতানা পারভীন’র মাধ্যমে জেলা প্রশাসন, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, এলজিইডি, জেলা পরিষদসহ বিভিন্ন দপ্তরে স্মারক লিপি হস্তান্তর করে। স্মারক লিপিতে ৮ দফা দাবীর মধ্যে রয়েছে, চর সিতাইঝাড় ভাটলা সুইচগেট রক্ষায় পূর্বদিকে ১ কিলোমিটার বাঁধ পূণঃনির্মাণ, দ্রুত নদী শাষন ব্যবস্থা গ্রহন, ধরলা নদী খনন করা, নদীর পাড়ে ব্লোক পিচিং করা, নদী ভাঙ্গন পরিবারগুলোর জন্য আবাসন বা গুচ্ছগ্রাম নির্মাণ প্রভৃতি।

এই মুহূর্তে অন্যরা যা পড়ছে

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 18
    Shares