সংবাদ শিরোনাম
Home / ক্রাইম প্রতিদিন / নাটোরে অপহরণের ২৪ দিন পেরিয়ে গেলেও উদ্ধার হয়নি কলেজ ছাত্রী তনু

নাটোরে অপহরণের ২৪ দিন পেরিয়ে গেলেও উদ্ধার হয়নি কলেজ ছাত্রী তনু

ক্রাইম প্রতিদিন, নাটোর : নাটোর নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা সরকারী কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্রী ফারিয়া ইয়াসমিন তনু অপহরণের ২৪ দিন পেরিয়ে গেলেই আজো উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ । কলেজ ছাত্রী অপহরণের ২৪ দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত তাকে উদ্ধার বা এ ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। অপহৃতা ঐ স্কুল ছাত্রী বেঁচে আছে কি না, তাকে উদ্ধার
করা সম্ভব কি না তা নিয়ে অপহৃতার পিতা-মাতা এবং পরিবারের মধ্যে হতাশা দিন দিন ক্রমেই বেড়ে চলেছে। অপহৃতার পরিবারের অভিযোগ অদৃশ্য কারণে পুলিশ এ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছে না। একটি প্রভাবশালী মহল বিষয়টিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার পাঁয়তারায় লিপ্ত রয়েছে বলে তাদের অভিযোগ। এদিকে মেয়েকে খুঁজে না পাওয়ায় অভিভাবক চরম উৎকন্ঠার মধ্যে দিনানিপাত করছে । এলাকাবাসীর অভিযোগ পুলিশি নিস্ত্রিয়তার কারণে ১৭ বছর বয়সী কলেজ ছাত্রীকে যেমন উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি । তেমনি ঘটনার সাথে জড়িত অপহরণকারীরা প্রকাশ্যে এলাকায় ঘুরে বেড়ালেও তাদের আটক করছে না পুলিশ ।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায় , নাটোর নবাব সিরাজ উদ দৌলা সরকারী কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্রী ফারিয়া ইয়াসমিন তনু সদর উপজেলার দস্তানাবাদ ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি সদস্য আব্দুল হাকিমের বাসায় থেকে পড়াশোনা চালিয়ে আসছিল । গত ১ লা জানুয়ারী বিকেল সাড়ে ৫ টায় নানার বাসা থেকে নিজ বাসা বাগাতীপাড়া উপজেলার জামনগর ইউনিয়নের পুকুর পাড়া গ্রামে যাওয়ার পথে দস্তানাবাদ গ্রামের জনৈক কছির মিয়ার বাসার সামনের পাকা সড়কের উপরে বখাটে নাঈম ইসলাম , মোঃ আলান এবং মোঃ খালেকসহ অঞ্জাতনামা ৩/৪ জন সন্ত্রাসী অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এবং মুখে গামছা পেঁচিয়ে সিএনজি অটো রিকশায় তুলে অঞ্জাত স্থানে তুলে নিয়ে যায় । খবরটি শোনামাত্র ঘটনার পরের দিন ২ জানুয়ারী অপহৃতার নানা আব্দুল হাকিম বাদী হয়ে নাটোর সদর থানায় তিনজনকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি অভিযোগ দাখিল করেন । পুলিশ নানা ভাবে গড়িমসি করে মামলা এজাহার হিসেবে গ্রহণ করে ঘটনার ৭ দিন পরে ৯ জানুয়ারী । আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ায় ঘটনার ২২ দিন পেরিয়ে গেলেও একজন আসামীকেই গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ ।

অপহৃত তনুর বাবা মা অভিযোগ করেন , অপহরণকারীদের সম্ভাব্য লুকিয়ে থাকার স্থান গাজীপুর চৌরাস্তায় নাঈম ইসলামের ভগ্নিপতির বাসায় অবস্থানের খবর নিশ্চিত হয়ে জানানোর পরও পুলিশ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি । পুলিশের নিস্ক্রিয়তার কারণে মামলার অভিযুক্ত আসামীরা প্রকাশ্যে এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং মামলা প্রত্যাহারের জন্য হুমকি ধামকি দিচ্ছে । আসামীরা সন্ত্রাসীরা প্রকৃতির হওয়ায় এবং পুলিশের নিস্ত্রিয় ভ’মিকার কারণে চরম নিরাপত্তাহীনতা এবং উৎকন্ঠার মধ্যে দিনানিপাত করছে তনুর পরিবার । অপহৃত মেয়েকে উদ্ধারের জন্য তারা প্রধানমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ।

এ ব্যাপারে মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আলী আকবর জানান, তনুকে উদ্ধারে আমরা সব ধরনের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে । অপহ্রত শিক্ষার্থীকে উদ্ধার ও অপহরণকারীদের গ্রেফতারে বিভিন্ন স্থানে সন্ধান চাওয়া হয়েছে। অপহরণকারীর ব্যবহৃত কল রেকর্ড ও সিডি চাওয়া হয়েছে। খুব শীঘ্রই অবস্থান নিশ্চিত হওয়া যাবে।সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে । আসামীরা আতœগোপনে থাকায় গ্রেফতারে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে বলে জানান তিনি। খুব তাড়াতাড়ি তনুকে উদ্ধার করা সম্ভব হবে ।

Print Friendly, PDF & Email

এই মুহূর্তে অন্যরা যা পড়ছে