নোয়াখালীতে মিনহাজ আহমেদের গণসংযোগ

ক্রাইম প্রতিদিন, সালাহ উদ্দিন সুমন, নোয়াখালী : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নোয়াখালী-৩ (বেগমগঞ্জ) আসনে ব্যাপক গণসংযোগ করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মিনহাজ আহমেদ জাবেদ। এ সময় তিনি বিপুল সংখ্য দলীয় নেতাকর্মীকে সাথে নিয়ে নিজ নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন স্থানে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরে নৌকায় ভোট চেয়ে সাধারণ মানুষের মাঝে প্রচাপত্র বিলি করেন। রাতে তিনি বিভিন্ন পূজামন্ডপ পরিদর্শন ও সনাতন ধর্মালম্ভীদের সাথে কুশল বিনিময় করেন।

এর আগে দুপুরে জমিদারহাটে আওয়ামীলীগ ও এর অংগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিনহাজ আহমেদ জাবেদ কে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার দাবিতে চৌমুহনী-ফেনী সড়কে বিশাল মানববন্ধন করেন। মানববন্ধন চলাকালে সড়কের দুইপাশে জানজট সুস্টি হয়। পরে মিনহাজ আহমেদ জাবেদ নেতাকর্মীদেরকে সড়ক থেকে সরে আসার আহবান জানন।

এ সময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিনহাজ আহমেদ জাবেদ বলেন, অবহেলিত বেগমগঞ্জবাসীর জন্য আমি যা করেছি তার মূল্যায়ন জনগণই করবে। বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত বেগমগঞ্জ উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন ও চৌমুহনী পৌরসভায় আমার হাত ধরে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও ৫০০ শয্যার জননেতা নুরুল হক হাসপাতালের নির্মাণ কাজ প্রক্রিয়াধীন।

উপজেলা পরিষদ ভবন, চৌমুহনী পৌর পাবলিক হল পুনঃপ্রতিষ্ঠা, কালচারাল একাডেমী ভবন সংস্করণ, চৌমুহনী সরকারী এস.এ কলেজে অনার্স ভবন নির্মাণ, রামঠাকুর জিওর মন্দিরের নতুন ভবন নির্মাণ, ১৬ ইউনিয়নে ও পৌরসভায় ৬শ ৪৪ কিলোমিটার নতুন পাকা ও ১৭০ কিলোমিটার রাস্তা মেরামতকরন, মাইজদী বাজার-রাজগঞ্জ-ছয়ানী ১০ কিলোমিটার সড়ক পাকাকরণ, অসংখ্য ব্রীজ-কালভার্ট পাকাকরণ সহ ছোট বড় আরো অনেক কাজ করেছি। অবহেলিত বেগমগঞ্জবাসীর উন্নয়নে আমি আমৃত্যু কাজ করে যেতে চাই।

আমার প্রতি জনগণের আস্থা ও ভালোবাসাকে বিবেচনায় নিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দলীয় মনোনয়ন দিলে বিজয় নিশ্চিত করে আমি আমার জনগণকে সাথে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা সড়ার কাজ এগিয়ে নিয়ে যাব ইনশাল্লাহ।
প্রসঙ্গত: বিএনপি অধ্যুষিত এই আসনে ৭৫ পরবর্তী প্রতিদ্বন্ধিতাপূর্ণ কোন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জয়লাভ করতে পারেনি। ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ না করায় আওয়ামী লীগের মামুনুর রশিদ কিরন বিনাপ্রতিদ্ধন্ধিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

বিগত সময়ে বিএনপি ক্ষমতায় থাকলেও বেগমগঞ্জে দৃশত কোন উন্নয়ন হয়নি। তবে ১/১১ সময়ে তৎকালীন সেনা প্রধান মঈন ইউ আহমেদের ছোট ভাই মিনহাজ আহমেদ জাবেদ এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন করেন। তার ঐকান্তিক চেষ্টায় বেগমগঞ্জে এমন কোন সড়ক নেই যা পাকা হয়নি। পাশাপাশি তিনি শিক্ষা প্িরতষ্ঠান, পোল কালভার্ট নির্মানসহ ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। যা এখনো বেগমগঞ্জবাসীর নিকট স্মরণীয়। ২০০৮ সালের নির্বাচনে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোট করেন। পরবর্তিতে তিনি আওয়ামীলীগে যোগদান করেন এবং বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি পদে রয়েছেন।

একজন সৎ, নির্লোভ ও পরোপকারী মানুষ হিসেবে মিনহাজ আহমেদ জাভেদের ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে । তিনি নেপথ্যে এলাকার উন্নয়নসহ মানুষের জন্য কাজ করে থাকেন। দলের অনেক নেতাকর্মীর কাছে তিনি একজন নিরহংকার নীতিবান নেতা হিসাবে পরিগনিত।

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 195
    Shares