Home / রাজনীতি / বিএনপির মিছিল থেকে হামলা চালিয়ে আটক কর্মী ‘ছিনতাই’

বিএনপির মিছিল থেকে হামলা চালিয়ে আটক কর্মী ‘ছিনতাই’

ক্রাইম প্রতিদিন, ঢাকা : জাতীয় ঈদগাহ মাঠ ও হাইকোর্টের গেটের সামনের রাস্তায় পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। প্রিজনভ্যানের তালা ভেঙে তারা আটক দুই কেন্দ্রীয় নেতাকে ছিনিয়ে নিয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, হামলাকারীদের ইটপাটকেলের আঘাতে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে রমনা বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) আজিমুল হকও আছেন। পরিস্থিতি মোকাবিলার সময় হামলাকারীদের ইটের আঘাতে পুলিশের একটি রাইফেল ভেঙে যায়।

মঙ্গলবার বিকালের দিকে খালেদা জিয়া আদালতে হাজিরা দিয়ে ফেরার পথে এ ঘটনা ঘটে। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার শুনানি শেষে খালেদা জিয়া আদালত থেকে ফেরার পথে গত দুই মাসে এ নিয়ে চতুর্থবারের মতো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটল।

পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদর জানান, কোনো প্রকার উসকানি ছাড়াই বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনায় শাহবাগ ও রমনা থানা পুলিশ মোট ৬৯ জনকে গ্রেফতার করেছে।

তিনি জানান, খালেদা জিয়া আদালত থেকে ফেরার পথে আমরা যথেষ্ট ধৈর্যশীল ছিলাম। বিএনপি নেতাকর্মীরা আমাদের একটি প্রিজনভ্যান ভাঙচুর করে। পুলিশের দিকে ইটপাটকেল ছোড়া হয়। কয়েকজন পুলিশ আহত হয়। তাদের হেলমেট ও রাইফেল ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার হাজিরাকে কেন্দ্র করে অন্যান্য দিনের মতো মঙ্গলবারও সকালের দিকে হাইকোর্ট এলাকায় জড়ো হয় দলটির নেতাকর্মীরা। পুলিশ তাদের সরিয়ে দিলে তারা জাতীয় প্রেসক্লাব ও এর আশপাশে অবস্থান করছিলেন। ওই এলাকা থেকে দুপুরে বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ওবায়দুল হক মিলন ও সোহাগ মজুমদারকে আটক করে পুলিশ। তাদের জাতীয় ঈদগাহ মাঠের পাশে কদম ফোয়ার এলাকার একটি প্রিজনভ্যানে রাখা হয়।

এদিকে হাজিরা শেষে বেলা পৌনে ৪টার দিকে বিএনপি চেয়ারপারসন আদালত থেকে বের হন। খালেদা জিয়ার গাড়িবহর ঈদগাহ মাঠের সামনে এলে প্রেসক্লাব ও এর আশপাশের এলাকা থেকে বিএনপি নেতাকর্মীরা সেখানে এসে জড়ো হয়। এ সময় পুলিশের আটক নেতাকর্মীরা প্রিজনভ্যান থেকে চিৎকার দিলে বিএনপি নেতাকর্মীরা প্রিজনভ্যানটি চারদিক থেকে ঘিরে ধরে মিছিল শুরু করে। একপর্যায়ে তারা প্রিজনভ্যানে ভাঙচুর চালায়। এ সময় বিএনপি চেয়ারপারসনের গাড়িবহর ওই এলাকা ত্যাগ করছিল।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে শাহবুল আলম নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, প্রিজনভ্যান ভাঙচুরের সময় এক পুলিশ সদস্য বাধা দিতে গেলে তাকে ঘিরে ফেলেন বিএনপি কর্মীরা। ওই পুলিশ সদস্যকে বাঁচাতে তার এক সহকর্মী এগিয়ে এলে তাদের দুইজনের ওপর হামলা করেন। পরে বিএনপির সিনিয়র নেতাকর্মীরা এগিয়ে এসে সেখান থেকে তাদের সরিয়ে নিয়ে যান।

পুলিশের এডিসি আজিমুল হক বলেন, হামলার সময় আমরা খালেদার জিয়ার গাড়ির সামনে অবস্থান করে গাড়িবহরকে প্রটেকশন দিচ্ছিলাম। এ কারণে আমরা অ্যাকশনে যাইনি। আমরা সেভাবে অ্যাকশনে গেলে খালেদা জিয়ার গাড়িবহর ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশংকা ছিল।

তিনি আরও জানান, হামলাকারীদের ঠেকাতে তাদের দিকে রাইফেল তাক করেছিল পুলিশ সদস্যরা। এ সময় হামলাকারীদের ইটের আঘাতে একটি রাইফেল ভেঙে যায়।

আরও পড়ুন.......

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 55
    Shares