Home / জাতীয় / বিভিন্ন ফসলের সময়োপযোগী নতুন জাত উদ্ভাবনের আহ্বান কৃষিমন্ত্রীর

বিভিন্ন ফসলের সময়োপযোগী নতুন জাত উদ্ভাবনের আহ্বান কৃষিমন্ত্রীর

ক্রাইম প্রতিদিন: মাঠ পর্যায়ে পানি সাশ্রয়ী প্রযুক্তি ও পরিবর্তিত জলবায়ু সহিষ্ণু জাত সম্প্রসারণের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী। একই সঙ্গে তিনি পরিবর্তনশীল জলবায়ু পরিস্থিতিতে টেকসই খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে কৃষি বিজ্ঞানী ও গবেষকদের প্রতি কৃষকের চাহিদা মোতাবেক সময়োপযোগী বিভিন্ন ফসলের নতুন নতুন জাত উদ্ভাবনের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

আজ শনিবার রংপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন রংপুর অঞ্চলের সকল সংস্থা এবং দফতর কর্তৃক আয়োজিত সংশ্লিষ্ট কৃষি কর্মকর্তাদের সঙ্গে একমত বিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মতিয়া চৌধুরী।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মহাপরিচালক কৃষিবিদ মো. আব্দুল আজিজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক কৃষিবিদ ড. আবুল কালাম আযাদ, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবির, জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জমান প্রমূখ।

আলোচনার শুরুতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের রংপুর অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মো. শাহ আলম অঞ্চলের কৃষির উন্নয়ন, অগ্রগতি ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে উপস্থাপনা করেন।

কৃষিমন্ত্রী তার বক্তব্যে সেচের জন্য কম পানি প্রয়োজন হয় এমন সব ফসল যেমন গম ও ভুট্টা জাতীয় ফসলের চাষাবাদ বৃদ্ধির পাশাপাশি পাতকুয়ার মাধ্যমে ভূ-গর্ভস্থ পানির উচ্চতা ঠিক রেখে সেচ প্রদানের প্রযুক্তি বিস্তারের আহ্বান জানান।

কৃষকদের কাছে কৃষিকাজকে আরো লাভজনক করতে তিনি কৃষি বাণিজ্যিকীকরণের জন্য ধানের পাশাপাশি উদ্যান ফসল আবাদ বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করেন।

বিভিন্ন দেশে কাঁচা কাঁঠাল প্রক্রিয়াজাত করে মোড়কে বা প্যাকেটে বিক্রয় করার বিষয় উল্লেখ করে তিনি জাতীয় ফল কাঁঠাল প্রক্রিয়াজাত করে রফতানি করার উদ্যোগ গ্রহণের জন্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সহযোহিতা কামনা করেন।

তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, ভবিষ্যতে দানাদার শস্য উৎপাদনের ক্ষেত্রে ভুট্টা দ্বিতীয় অবস্থানে চলে যাবে।

এজন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরকে ভুট্টা আবাদ বৃদ্ধির ব্যাপারে নির্দেশনা প্রদান করেন। ভুট্টার দানা মানুষ, হাঁস-মুরগি ও মাছের খাবার হিসেবে ব্যবহৃত হয়। আবার ভুট্টা গাছের কাণ্ড বিশেষ প্রক্রিয়ায় সংরক্ষণ করে বর্ষাকালে গো-খাদ্যের অভাবের সময় এটিকে ব্যবহার করা যায় বলে তিনি উল্লেখ করেন। বাসস

আরও পড়ুন.......

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 18
    Shares