Home / শিক্ষাঙ্গন / বৈশাখ মাসে তার হাঁটু জল থাকে……..!

বৈশাখ মাসে তার হাঁটু জল থাকে……..!

ক্রাইম প্রতিদিন, জুয়েল আহমদ, জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) : সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় ও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। দুটি বিদ্যালয়ের রাস্তার তুলনায় ড্রেন নিচু থাকার পরও পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় পানি জমা হয়ে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে।বিশেষ করে বৈশাখ মাস থেকে শুরু হয়ে বর্ষায় এ সমস্যা আরো প্রকট হয়।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রানীগঞ্জ বাজারের পূর্ব গলিতে কোন ধরনের পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থায় নাই।অন্য গলিতে ড্রেইন থাকলেও পূর্ব গলিতে ড্রেইন নাই।বিশেষ করে পূর্ব বাজারের রাস্তার পানি বিদ্যালয়ের পাশে থাকা ড্রেইন দিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা থাকলেও ড্রেইনের মুখ ভরাট হওয়ায় পানি জমা হয়ে ছোট ছোট শিক্ষার্থীদের হাঁটু পানি হয়ে যায়।ছাত্রীরা তাহাদের কাপড় ভিজিয়ে বিদ্যালয়ের প্রবেশ করতে হচ্ছে।একটু বৃষ্টি হলে শিক্ষার্থীদের জন্য ছোট কুশিয়ারা নদীর রুপ নেয় বিদ্যালয়ের প্রবেশ মূখের রাস্তাটি।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানান,আমরা প্রত্যেক দিন শুকনো কাপড় নিয়ে বিদ্যালয়ে প্রবেশ করি।কিন্তু একটু বৃষ্টি হলে বিদ্যালয়ের প্রবেশ মুখে এসে বিদ্যালয়ের ড্রেস বিজিয়ে ক্লাসে যেতে হয়।এটা আমাদের জন্য কষ্টকর বিষয় ময়লা আর্বজনার পানি আমাদের শরিরে বিভিন্ন সময় রোগ দেখা দেয়।আমাদের বিদ্যালয়ের রাস্তা হেমন্তে শুকনো থাকে,বৈশাখ মাসে তার হাঁটু জল থাকে।এটা থেকে আমাদের মুক্ত করুন।

রানীগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী সোহেল আহমদ বলেন,আমাদের বাজারের পূর্ব গলির এক অংশ কুশিয়ারা নদীর পাড়। বিগত দিনে ড্রেইন এর পানি নদীতে যাইত বর্তমানে ড্রেইন ব্যবস্থা না থাকায় পানি বিদ্যালয়ের পাশে থাকা রাস্তা দিয়ে চলে যায়।বাজারের ময়লা জমতে জমতে এখন নালাটি বন্ধ হয়ে গেছে।ময়লা আবর্জনা দিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীগন কষ্ট করে চলাচল করছে যা ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য দুঃখ জনক ব্যাপার।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নিয়ে আসা অভিভাবকরা জানান, পূর্ব বাজারের ড্রেইন না থাকায় আমাদের ছাত্র/ছাত্রীগন বিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে বহু কষ্ট হচ্ছে।বিগত দিনে একটি ড্রেইন ছিল গত বছর রাস্তার কাজ করানো পর ড্রেইনটি রাস্তার নিচে চলে যায়।রাস্তার কাজ করানো আগে ড্রেইন এর কাজ করানো জরুরী ছিল।বাজারের ব্যবসায়ীগন নিয়মিত রাস্তায় ময়লা-আবর্জনা ফেলেন।ড্রেইন সমস্যা থেকে আমাদের পূর্ব বাজারের ব্যবসায়ীগন সহ কমলমতি শিক্ষার্থীদের রক্ষা করতে সকলের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

রানীগঞ্জ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাবু নিশিকান্ত দাশ ক্রাইম প্রতিদিনকে বলেন, আমাদের বিদ্যালয়ের রাস্তায় পানি জমায় বিষয়টি গত বছর উপজেলায় মৌখিক ভাবে কয়েকজনকে জানিয়েছি। প্রত্যেক বছর বৈশাখ মাস থেকে বৃষ্টির মৌসুমে পানিতে ভিজে শিক্ষার্থীগন বিদ্যালয়ে যেতে হচ্ছে। ড্রেইনের পানি থেকে দুটি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মুক্তি দিতে বাজারের নেতৃবৃন্দ সহ প্রসাশনের সকলের কাছে আকুল আবেদন জানাচ্ছি।

এ ব্যাপারে রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম রানা ক্রাইম প্রতিদিনকে বলেন, পূর্ব বাজারের ড্রেইনের কাজ করানো গত বছর আমাদের পরিকল্পনায় ছিল। আমরা কাজের অনুমোদন পাই নাই। একটি দরখাস্ত করা আছে ড্রেইনের জন্য আমাদের আশ^াস দেয়া হয়েছে। আশা করি বর্তমান অর্থ বছরের ড্রেইনের কাজ শুরু করতে পারবো।

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 40
    Shares