Home / ক্রাইম প্রতিদিন / ভাইকে বেঁধে বোনকে গণধর্ষণ, আটক ৩

ভাইকে বেঁধে বোনকে গণধর্ষণ, আটক ৩

ক্রাইম প্রতিদিন, শিমুল জাহিদ, রাজশাহী :  রাজশাহী মহানগরীর শিরোইল কলোনি কানারমোড় এলাকায় ৫ বছর বয়সি ছোট ভাইকে বেঁধে কিশোরী বোন (১৩) কে পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে পাঁচ লম্পট যুবক। গত শনিবার রাত সাড়ে তিনটার দিকে রাজশাহী নগরীর শিরোইল বাসস্ট্যান্ড কুটুম বাড়ি রেস্তোরা থেকে তাদের তুলে নিয়ে নগরীর চন্দ্রিমা থানাধীন শিরোইল কলোনী কানার মোড়ে জাফরের বাড়িতে ওই কিশোরীকে নিয়ে যায় লম্পটরা।

এরপর সেখানে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। ওই সময় কিশোরী চিৎকার করায় লম্পটরা তাকে কাঁচের বোতল ও লাঠি দ্বারা মারপিট করে আহত করে। ধর্ষিতা কিশোরী (১৩) ময়মনসিংহ স্টেশন পাড়ার মৃত দুলাল মিয়ার মেয়ে। এ ঘটনায় তিন লম্পটকে শিরোইল বাস টার্মিনাল বক্স পুলিশ আটক করে চন্দ্রিমা থানায় হস্তান্তর করে। তবে অপর দুই ধর্ষক পালিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আটককৃত ধর্ষণকারীরা হলো: নগরীর চন্দ্রিমা থানাধীন কানারমোড় এলাকার মৃত সাহিন ইকবালের ছেলে জাফর (৩০) একই এলাকার রবিন্দ্রদাশের ছেলে শ্রী সাগর দাশ(২৬) ও জাহিদ হাসানের ছেলে রনি (২৩)। এ বিষয়ে কুটুমবাড়ি রেস্তোরার কর্মচারী সেলিম জানায়, রাত্রি দুইটার দিকে হোটেল কর্মচারী জাফর একটি অল্প বয়সের মেয়ে সাথে ৫ বছর বয়সি একটি ছেলেকে হোটেলে নিয়ে এসে ভাত দিতে বলে। এর কিছুক্ষণ পরে আরো চারজন যুবক হোটেলে প্রবেশ করে। পরে তাদের খাওয়া শেষে রাত পৌনে তিনটার দিকে কিশোরী ও তার সাথে থাকা ছোট কিশোর ভাইকে রিক্সায় নিয়ে চলে যায় লম্পটরা। এরপর শিরোইল কলোনী কানার মোড়ে জাফরের বাড়িতে ওই কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে ধর্ষকরা। ওই সময় কিশোরী চিৎকার করলে ধর্ষকরা তাকে কাঁচের বোতল ও লাঠি দ্বারা মারপিট করে আহত করে পালিয়ে যায়।

পরে খবর পেয়ে পুলিশ গত রবিবার ভোর ৬ টার দিকে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে শাহমখদুম থানার ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে পাঠায়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে চন্দ্রিমা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হুমায়ুন কবির জানান, কিশোরী (১৩) ও তার ভাই নগরীতে তাদের আত্মীয়রবাড়ি বেড়াতে আসে। এ সময় তারা জাফরের নিকট ঠিকানা জানতে চায়। জাফর তাদের আত্মীয়রবাড়ি পৌঁছে দেওয়ার নাম করে লম্পট জাফর তার নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। এ সময় অন্য ৪জন সঙ্গি মিলে ওই কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

এ বিষয়ে চন্দ্রিমা থানায় সোমবার সকালে ভিকটিম বাদী হয়ে পাঁচ জনের নাম উল্লেখ করে ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতণ আইনের ৯(৩)/৩০ ধারায় একটি গণধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। পরে সোমবার বেলা ১১ টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ওসিসি) ওয়ার্ডে ওই কিশোরীকে ভর্তি করা হয়েছে এবং আটক তিন ধর্ষককে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

রনি ও আলিফ নামের পলাতক দুই ধর্ষককে আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান ওসি।

আরও পড়ুন.......

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 283
    Shares