April 20, 2019

মাদক বিরোধী যৌথ অভিযানে সিসি ক্যামেরা ও কিরিচ জব্দ!

ক্রাইম প্রতিদিন, কক্সবাজার : কক্সবাজার’র টেকনাফে মাদক বিরোধী যৌথ ট্রাস্কফোর্সের অভিযানে ১২ টি অবৈধ সিসি ক্যামরা ও ধারালো কিরিচ জব্দ করা হয়েছে।এবিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানাগেছে।

সুত্রে জানা গেছে,বৃহস্পতিবার (৬সেপ্টেম্বর) দুপুর টেকনাফ উপজেলার সদর ইউনিয়নের নাজিরপাড়া এলাকায় সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট
প্রণয় চাকমার নেতৃত্বে দুপুর ১২টা নাগাদ র‌্যাব,পুলিশ,আনসার,ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের যৌথ ট্রাস্ক ফোর্সের সমন্বয়ে সিরাজুল হক উরফে চান মিয়ার
বাড়ীতে অভিযান পরিচালনা করা হয়।এ সময় তার বাড়ীর অভ্যান্তরে ও বাড়ির সম্মুখে রাস্তায় সন্দেহ জনক পয়েন্ট গুলোতে অভিযান চালিয়ে ১২টি সিসি ক্যামরার সেটআপ ও ভিটার অভ্যন্তরে লুকানো অবস্থায় ৩টি কিরিচ,একটি ফোন সেট সহ (কক্সবাজার ল-১১-২২৩৩) একটি মোটর সাইকেল জব্দ করা হয়েছে।

এবিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট প্রণয় চাকমা জানান, মাদক বিরোধী যৌথ অভিযানের অংশ হিসাবে উক্ত বাড়ীতে তল্লাশি কার্যক্রম পরিচালনা করেছি।সিরাজুল ইসলাম একজন
মাদক ব্যবসায়ী।সে প্রশাসনের গতিবিধি লক্ষ্য রেখে গ্রেফতার এড়াতে বেআইনী ভাবে এসব সিসি ক্যামেরা ব্যবহার করে আসছিলো।তবে দ্বীর্ঘ ৩ ঘন্টা তল্লাশী চালিয়ে কোন
ধরনের মাদক পাওয়া যায়নি।ঘটনা স্থলে মৌলভী নুরুল হক নামক সিরাজুল ইসলামের এক ভাইকে পাওয়া গেছিলো।তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ না থাকায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।এঘটনায় একটি নিয়মিত মামলার প্রক্রিয়াধীন বলে জানান।

অপরদিকে সিরাজুল ইসলামের পারিবারের দাবী,কিছুদিন পূর্বে নিহত মার্কিনের বসতবাড়ীতে স্বশস্ত্র হামলা কারীরা মিথ্যা তথ্য দিয়ে আমাদের পরিবারকে ঘায়েল
করতে প্রশাসনকে বিভ্রান্ত করছে। সিরাজুল ইসলাম চান মিয়া একজন প্রতিষ্টিত গবাদী পশু আমদানী কারক।ইতিমধ্যে আমাদের পরিবারটিকে ঘায়েল করতে নানা ভাবে
ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে পার্শ্ববর্তী নুরুল হক ভূট্টো।এসব ষড়যন্ত্র থেকে রক্ষা পেতে বাড়ীর আশ পাশ্বে সিসি ক্যামরা বসানো হয়েছে।এই সীমানার মধ্যে কোন ধরনের
ঘেরা বেড়া নেই সুতরাং যে সব কিরিচ জব্দ করেছে তাও বাড়ীর শেষ সীমানা নুরুল হক ভূটোর বাড়ির সীমানা সংলগ্ন।তবে বিষটি খতিয়ে দেখে সঠিক তদন্তের মাধ্যমে
ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।