Home / সারাদেশ / যানজট বেশী আয় কম

যানজট বেশী আয় কম

ক্রাইম প্রতিদিন, লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ বাজার থেকে রায়পুর উপজেলার বোয়াডার বাজার পর্যন্ত রাস্তাটির সংস্কারের কাজ চলছে। তাই রাস্তায় অধিকাংশ যায়গায় দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। তাতেই ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়িয়ে থাকতে হয়। ফলে দুরের যাত্রী ছাড়া অন্য যাত্রীরা গাড়িতে উঠতে চায় না। পায়ে হেটেই গন্তব্য স্থানে যায়। আগে পারাপারে যে সময় লাগত বর্তমানে তার কয়েকগুন বেশী সময় লাগে। তাই আমাদের যাত্রী অনেক কম। সময় বেশী লাগলেও আমাদের ভাড়া কিন্তু বাড়েনি। কমেনি মালিকদের জমা। তাই বর্তমানে যানজট বেশী হওয়াতেই আমাদের আয় অনেক কমে গেছে। দিন শেষে যে টাকা পাই তা মালিকের জমা ও খরচ বাদ দিয়ে আমাদের তেমন কিছুই থাকে না। বর্তমানে আমাদের সংসার অনেক কষ্ট করে চালাতে হয়। এমনটি মন্তব্য করলেন এই রাস্তায় চলাচল করা আনন্দ বাসের চালক চন্দ্রগঞ্জ থানার জয়পুর গ্রামের মজিবুর রহমান।

শুধু মজিবুর রহমান নয় এই রাস্তায় চলাচল করা সকল গাড়ি চালকদের একই অভিযোগ।

জেলার একাধিক সিএনজি চালকের সাথে কথা বলে জানা যায়, রাস্তা সংস্কারের কাজ চলার কারনে এক লেনের রাস্তা দিয়ে সকল গাড়ি চলাচল করতে হয়। তাই যে কোন সময় দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। এখন যানজট বেশী তাই আমাদের আয় ও কম। কিন্তু সে তুলনায় আমাদের অন্য খরচতো কমে নাই।

লক্ষ্মীপুর শহরের রিক্সা চালক জুয়েল বলেন, রাস্তার উন্নয়নের কাজ চলার কারনে দীর্ঘ সময় যানজট থাকে। ফলে অধিকাংশ মানুষই এখন পায়ে হেটে গন্তব্য স্থানে যায়। তাই আমাদের আয়ও এখন কমে গেছে।

কলেজ শিক্ষার্থী মনির জানান, গাড়িতে উঠলে যানজটের কারনে অল্প পথে অনেক সময় লাগে। তাই কয়েকদিন থেকেই পায়ে হেটেই আসা যাওয়া করি।

স্থানীয় অধিকাংশদেরই অভিযোগ, রাস্তা সংস্কারের জন্য কার্পেটিং তুলে বড় বড় গর্ত করে রাখলেও কাজ শেষ না করে, ফেলে রাখা হয় দীর্ঘদিন ধরে। আর এ গর্তে প্রায়ই গাড়ি পড়ে ঘটছে দূর্ঘটনা। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হয় আমাদের ও গাড়ি চালকদের।
তবে যে অংশের কার্পেটিং তুলে গর্ত করা হয়, সে অংশের কাজ শেষ করে অন্য অংশের কার্পেটিং তুলতে হবে নিয়ম থাকলেও তা মানছে না ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানগুলো।
ধীর গতিতে অগ্রসর হচ্ছে রাস্তা সংস্কারের কাজ। তাই কবে কাজ শেষ হবে আর কখন তারা এই ভোগান্তি থেকে রক্ষা পাবে এমনই ভাবনা সবার মনে।

ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানগুলো বলছেন, যে স্থানে কাজ চলে সেখানে গাড়ি সুশৃঙ্খলভাবে পারাপারের জন্য আমাদের লোক নিয়োজিত রয়েছে। তবে গর্তের কারনে যানজট কিছুটা হলেও কিন্তু বেশী হচ্ছে চালকরা সুশৃঙ্খলভাবে গাড়ি না চালানোর কারনে বলে অভিযোগ করেন তারা। তবে নির্দিষ্ট সময়ের আগে সংস্কারের কাজ শেষ হবে বলে আশ্বাসও দেন তারা।

তবে সড়ক ও জনপথ বিভাগ বলছে, রাস্তার উন্নয়নের কাজ চললে যানজট একটু হবেই। তবে চালকরা সুশৃঙ্খলভাবে গাড়ি চালালে যানজট এত বেশী হবে না।

গুরুত্বপূর্ন কয়েকটি যায়গায় যানজট ও চালকদের বিশৃঙ্খলা এড়াতে সর্বদা কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন লক্ষ্মীপুর ট্রাফিক বিভাগ। তবে এক্ষেত্রে তারাও অধিকাংশ চালকদের কারনে দীর্ঘ যানজট হচ্ছে বলে দাবি করছেন।

উল্লেখ্য: লক্ষ্মীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগ গত মার্চ মাসে রায়পুর থেকে সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ বাজার পর্যন্ত ৪০ কিলোমিটার রাস্তা ১১ কোটি টাকা ব্যায়ে দরপত্রে আহবান করে। কাজটি বর্তমান চলমান রয়েছে।

আরও পড়ুন.......

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন
  • 23
    Shares